kalerkantho

ব্যক্তিত্ব

৮ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



ব্যক্তিত্ব

সোমেন চন্দ

মার্ক্সবাদী আন্দোলনের কর্মী ও সাহিত্যিক সোমেন চন্দের জন্ম ১৯২০ সালের ২৪ মে তৎকালীন নরসিংদী জেলায়। ১৯৩৬ সালে তিনি পগোজ স্কুল থেকে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৩৭ সালে তিনি ঢাকা মিটফোর্ড মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হন; কিন্তু খারাপ স্বাস্থ্যের কারণে পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পারেননি। এ সময় তিনি প্রগতি লেখক সংঘে যোগদান করেন এবং মার্ক্সবাদী রাজনীতি ও সাহিত্য আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হন। তিনিই প্রথম বাংলা সাহিত্যে গণসাহিত্যের ওপর কাজ করেন।

১৯৪১ সালে তিনি প্রগতি লেখক সংঘের সম্পাদক নির্বাচিত হন। তাঁর লেখা সাধারণত প্রগতি লেখক সংঘের সাপ্তাহিক বা পাক্ষিক সভায় পাঠ করা হতো। মাত্র ১৭ বছর বয়সে তিনি ‘বন্যা’ উপন্যাসটি লেখেন। ১৯৪০ সালে তাঁর ‘বনস্পতি’ গল্পটি ক্রান্তি পত্রিকায় ছাপা হয়। ১৯৭৩ সালে রণেশ দাশগুপ্ত তাঁর গল্প নিয়ে একটি সংকলন সম্পাদনা করেন। তাঁর ‘ইঁদুর’ গল্পটি বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে। ইঁদুর ছাড়াও সংকেত, বনস্পতি, দাঙ্গা, সত্যবতীর বিদায়, উৎসব, মুখোশ ইত্যাদি তাঁর বিখ্যাত গল্প। একটি উপন্যাস, ২৮টি গল্প, তিনটি কবিতা, দুটি নাটকসহ তাঁর লেখা চিঠির সংকলনও প্রকাশিত হয়েছে। সোমেন চন্দের নামানুসারে পুরস্কারের প্রবর্তন করে কলকাতার বাংলা আকাদেমি। ঢাকার সূত্রাপুরে সেবাশ্রমের কাছে তিনি হামলার শিকার হন। তখন তিনি সোভিয়েত সুহৃদ সমিতির উদ্যোগে রেলওয়ের কর্মীদের একটি মিছিলের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন। সেখানেই ১৯৪২ সালের ৮ মার্চ তিনি মারা যান। তাঁর মৃত্যুর পর প্রগতি লেখক সংঘ ‘প্রতিরোধ’ নামে একটি বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ করে।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]


মন্তব্য