kalerkantho

ব্যক্তিত্ব

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ব্যক্তিত্ব

আর্থার সি ক্লার্ক

আর্থার সি ক্লার্ক বিখ্যাত বিজ্ঞান কল্পকাহিনি লেখক ও উদ্ভাবক। বিখ্যাত অডিসি সিরিজের স্রষ্টা। ১৯৪৫ সালে প্রকাশিত এক বিজ্ঞান প্রবন্ধে ক্লার্কই প্রথম উপগ্রহভিত্তিক যোগাযোগব্যবস্থার ধারণা দেন। ২০০১ সালে ‘আ স্পেস অডিসি’ চলচ্চিত্রে চিত্রনাট্য রচনার জন্য স্ট্যানলি কুবরিকের সঙ্গে যৌথভাবে একাডেমি পুরস্কার মনোনয়ন পান। পুরো নাম আর্থার চার্লস ক্লার্ক। ১৯১৭ সালের ১৬ ডিসেম্বর ইংল্যান্ডে দরিদ্র এক কৃষক পরিবারে জন্ম। মাধ্যমিক পাস করে অর্থাভাবে পড়ালেখাই বন্ধ করে দেন এবং শিক্ষা বোর্ডে পেনশন অডিটরের চাকরি নেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তিনি রয়াল এয়ার ফোর্সে রাডার বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করেছেন। শৈশবে ম্যাগাজিনের কল্পবিজ্ঞানমূলক রচনা পড়তে ভালোবাসতেন—যুদ্ধকালীন অভিজ্ঞতা থেকেই লিখে ফেলেন তাঁর অবৈজ্ঞানিক কল্প উপন্যাস ‘গ্লাইড পথ’। যুদ্ধ শেষে লন্ডনের কিংস কলেজ থেকে তিনি গণিত ও পদার্থবিজ্ঞানে প্রথম শ্রেণিতে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর কয়েক বছর ব্রিটিশ ইন্টারপ্ল্যানেটারি সোসাইটির (বিআইসি) সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন; যদিও তিনি ‘জিওস্টেশনারি স্যাটেলাইট’ ধারণার প্রবর্তক ছিলেন না, তবু আদর্শ টেলিযোগাযোগ সম্প্রচার পরিকল্পনায় তাঁর অবদান গুরুত্বপূর্ণ।

১৯৪৫ সালে তিনি বিআইসির শীর্ষ কারিগরি সদস্যদের কাছে এ পরিকল্পনার কাগজ জমা দেন, যা একই বছর ‘ওয়্যারলেস ওয়ার্ল্ড’ অক্টোবর সংখ্যায় প্রকাশিত হয়। ১৯৫৩ সালে এক পুত্রসন্তানের জননী মেরিলিন মেফিল্ডকে বিয়ে করেছিলেন। ১৯৬৪ সালে তাঁদের বিচ্ছেদ ঘটে। সত্তরের দশকে তিনি তিনটি বই প্রকাশের চুক্তি করেন এক কম্পানির সঙ্গে, যা তখন পর্যন্ত কোনো কল্পবিজ্ঞান লেখকের সর্বোচ্চ রেকর্ড। ১৯৮৯ সালে রানি এলিজাবেথের জন্মদিনে তাঁকে কমান্ডার অব দ্য অর্ডার অব দ্য ব্রিটিশ এম্পায়ার (সিবিই) খেতাবে ভূষিত করা হয়। ২০০০ সালে সাহিত্যকর্মে বিশেষ অবদানের জন্য তাঁকে নাইট ব্যাচেলর সম্মাননা দেওয়া হয়। জীবনের বেশির ভাগ সময় ক্লার্ক শ্রীলঙ্কায় ছিলেন। ২০০৮ সালের ১৯ মার্চ তাঁর মৃত্যু হয়। ইন্টারন্যাশনাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিয়ন মহাকাশের এক জিওস্টেশনারি অরবিটকে ক্লার্ক অরবিট নাম দিয়েছে।


মন্তব্য