kalerkantho


‘উর্বর ক্ষেত্র রেখে জঙ্গিবাদ দমন হবে না’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



‘উর্বর ক্ষেত্র রেখে জঙ্গিবাদ দমন হবে না’

সাবেক ছাত্রনেতা শফি আহমেদ বলেছেন, ‘একের পর এক জঙ্গি হামলার ঘটনায় এখন জনমনে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে যে জঙ্গিবাদ কি দমন করা যাবে? আমার কথা হলো, দেশে জঙ্গিবাদের উর্বর ক্ষেত্র রেখে জঙ্গিবাদ বা সন্ত্রাসবাদ দমন করা যাবে না। আগে এই উর্বর ক্ষেত্রগুলো কঠোর হস্তে দমন করতে হবে।

জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদ জাতীয় অস্তিত্বের প্রতি হুমকিস্বরূপ, এটি কোনো দলের বিষয় নয়। দেশের ও জাতীয় স্বার্থে আমাদের সবাইকে এর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ’ শুক্রবার রাতে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল বাংলাভিশনের সংবাদ পর্যালোচনাভিত্তিক টক শো নিউজ অ্যান্ড ভিউজ অনুষ্ঠানে আলোচনা করতে গিয়ে তিনি এ কথা বলেন। আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ বাংলাদেশের স্থিতিশীলতা নষ্ট করছে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, উগ্রবাদীদের বিরুদ্ধে সফল অভিযানের কারণে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা শিকারে পরিণত হচ্ছেন। প্রথমে চান্দিনা, এরপর ফেনী, সীতাকুণ্ড হয়ে আশকোনায় আমাদের এলিট ফোর্স র‌্যাবের ওপর আত্মঘাতী হামলা হয়েছে।

সাংবাদিক গোলাম মোর্তোজার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো আলোচনা করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক ছাত্রনেতা হাবীবুর রহমান হাবীব।

অনুষ্ঠানের শুরুতে সঞ্চালক বলেন, গত কয়েক দিনে দেশে আবারও জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। আগে দু-চারজন গ্রেপ্তার হলেও মূল হোতারা রয়ে যায় ঘটনার বাইরে। সাম্প্রতিক ঘটনাগুলো নিয়ে কিভাবে বিশ্লেষণ করবেন?

জবাবে শফি আহমেদ বলেন, ‘বর্তমান সরকার জনমানুষের নিরাপত্তায় অঙ্গীকারবদ্ধ।

ফলে কোনো অঘটন ঘটলেই সঙ্গে সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তত্পর হয়ে ওঠে। আর অপরাধীরা ধরাও পড়ছে। তার পরও যেহেতু জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা, হয়তো এর মূলোত্পাটন করতে আরো কিছুটা সময় লাগবে। তবে এ সরকার ক্ষমতায় থাকলে একদিন নিশ্চয়ই এ দেশ থেকে জঙ্গিবাদের মূলোত্পাটন হবে। তিনি বলেন, জঙ্গি-সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর হামলা করে তাদের মনোবল ভেঙে দিয়ে একটি স্থিতিহীন পরিবেশ সৃষ্টি করতে চায়। এখানে মতপার্থক্যের চিন্তা করে লাভ নেই। আমরা ভিন্ন ভিন্ন দল করি। কিন্তু দেশটা আমাদের সবার। দেশ যদি ঠিক না থাকে, অস্থিরতা ও নাশকতা হয়, তাহলে আপনি-আমি কেউ নিরাপদ নই। এটা জাতির জন্য চ্যালেঞ্জ। ’ তিনি বলেন, ‘নিরাপত্তার স্বার্থে অপশক্তিকে আমাদের সম্মিলিতভাবে মোকাবেলা করতে হবে। দেশের স্বার্থে, জাতীয় স্বার্থে জঙ্গিবাদ-সাম্প্রদায়িকতা মোকাবেলায় আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ’

এ পর্যায়ে ছাত্রনেতা হাবীবুর রহমান হাবীব বলেন, কোনো কিছু ঘটলেই সরকার ঢালাওভাবে বলে দেয় যে বিএনপি-জামায়াত করেছে। এমনও হয়েছে, আগে বিএনপিকে দোষারোপ করা হয়েছে; কিন্তু পরে দেখা গেল, বিএনপি নয়, অন্য কেউ জড়িত। তিনি আরো বলেন, ‘ক্ষমতাসীন সরকার নিজেদের অবৈধ ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার জন্য জঙ্গিবাদ দমনে আন্তরিক নয়। সরকার এ ক্ষেত্রে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে রাজি নয়। প্রকৃত অর্থে কারা জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত হচ্ছে বা কারা এর জন্য দায়ী—এটা চিহ্নিত করে নির্মূল করার ক্ষেত্রেও সরকার আন্তরিক নয়। আশকোনায় র‌্যাবের ক্যাম্পে হামলার বিষয়ে সরকারের অনেক নেতা ও মন্ত্রী বলেছেন, তাঁরা নাকি দেশকে স্বস্তি দিয়েছেন, দেশের মানুষকে শান্তিতে বসবাস করার পরিবেশ সৃষ্টি করে দিয়েছেন, তাঁরা জঙ্গি নির্মূল করেছেন। কিন্তু আমরা নির্মূলের কোনো চিহ্ন পেলাম না। আমরা দেখছি, সরকার এ জঙ্গিদের ‘অবজেকটিভ’ বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত জানতে চায় না। তারা অন্যের ওপর দোষ চাপাতেই ব্যস্ত। ’ তিনি বলেন, “আমরা সরকারে নেই, সরকারের বহু ‘ইনস্ট্রুমেন্ট’ আছে। সব সেক্টর সচল করলে নিশ্চয়ই জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে পারবে না। ”


মন্তব্য