kalerkantho


এই সময়

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর ও তিস্তা চুক্তির ভবিষ্যৎ

তারেক শামসুর রেহমান

১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর ও তিস্তা চুক্তির ভবিষ্যৎ

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের তারিখ এখন অনেকটা নির্ধারিত। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহে এই সফর শুরু হবে। এই প্রথমবারের মতো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থাকবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে এবং তা ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ব্যক্তিগত আগ্রহেই। ব্যক্তিগত পর্যায়ে ভারতের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে সম্পর্ক রয়েছে, তার পরিপ্রেক্ষিতেই রাষ্ট্রপতি ভবনে রাষ্ট্রপতির আতিথ্য গ্রহণ করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। এর মধ্যেই ঢাকা ঘুরে গেছেন ভারতের পররাষ্ট্রসচিব জয়শংকর। তাঁর ঢাকা সফরের পরই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নয়াদিল্লি সফর চূড়ান্ত হয়। এর আগে দু-দুবার এই সফরের তারিখ নির্ধারিত হলেও তা অনুষ্ঠিত হয়নি। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০১৫ সালের মে মাসে ঢাকা সফরে এসেছিলেন। এখন ফিরতি সফরে প্রধানমন্ত্রী নয়াদিল্লি যাচ্ছেন। তবে এই সফর নিয়ে নানা প্রশ্ন আছে। এটা এখন মোটামুটিভাবে নিশ্চিত হয়ে গেছে যে এই সফরে তিস্তার পানি চুক্তি স্বাক্ষরিত হচ্ছে না।

তবে বাংলাদেশ গঙ্গা ব্যারাজ নিয়ে কথা বলবে এবং এটি নির্মাণে ভারতের সহযোগিতা চাইবে। বর্ষা মৌসুমে পানি ধরে রাখা ও শুষ্ক মৌসুমে তা ব্যবহার করার জন্য এই গঙ্গা ব্যারাজ একটি বড় ভূমিকা পালন করবে। একটি সাময়িক সহযোগিতামূলক সমঝোতা স্বাক্ষরিত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যার বিস্তারিত এখনো গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়নি। তিস্তা পানি চুক্তি না হওয়ায়, এ সফর বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে খুব সফল হবে বলে মনে হয় না! আমাদের জন্য তিস্তার পানি বণ্টনের গুরুত্ব অনেক বেশি। এরই মধ্যে সংবাদপত্রে খবর বেরিয়েছে, লালমনিরহাটের ডালিয়া পয়েন্টে পানির প্রবাহ কমে এসে দাঁড়িয়েছে ৫০০ কিউসেকে। অথচ নদী রক্ষায় প্রয়োজন হয় এক হাজার কিউসেক। এটা আমাদের প্রধান অগ্রাধিকার। এই  অগ্রাধিকার যদি নিশ্চিত না হয়, তাহলে তা দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে প্রভাব ফেলবে।

শুধু নদী বাঁচানোই নয়। সেচ প্রকল্পের জন্যও আমাদের দরকার ন্যূনতম তিন হাজার কিউসেক পানি। সুতরাং তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে আমাদের নিরাপত্তার সঙ্গে এটা সরাসরি সম্পৃক্ত। আমাদের নীতিনির্ধারকরা যদি বিষয়টিকে হালকাভাবে দেখেন, তাহলে এ দেশ, বিশেষ করে উত্তরবঙ্গ একটি বড় ধরনের সংকটে পড়বে। খাদ্যনিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে থাকবে। এমনকি রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এতে বাড়বে। মনে রাখতে হবে, তিস্তায় পানি প্রাপ্তি আমাদের ন্যায্য অধিকার। আন্তর্জাতিক আইন আমাদের পক্ষে। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের দায়িত্ব আমাদের অধিকার নিশ্চিত করা। এ ক্ষেত্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আপত্তি বা সমর্থন—এটা আমাদের বিষয় নয়। আমরা এটি বিবেচনায় নিতে চাই না। আমাদের অধিকার, যা আন্তর্জাতিক আইনে স্বীকৃত, তা নিশ্চিত করবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এখানে বলা ভালো, সিকিম হয়ে ভারতের দার্জিলিং ও জলপাইগুড়ি হয়ে পশ্চিমবঙ্গের ডুয়ারের সমভূমি দিয়ে চিলাহাটি থেকে চার-পাঁচ কিলোমিটার পূর্বে বাংলাদেশের নীলফামারী জেলার উত্তর খড়িবাড়ীর কাছে ডিমলা উপজেলার ছাতনাই দিয়ে প্রবেশ করেছে তিস্তা নদী। ছাতনাই থেকে এ নদী নীলফামারীর ডিমলা, জলঢাকা, লালমনিরহাট সদর, পাটগ্রাম, হাতীবান্দা, কালীগঞ্জ, রংপুরের কাউনিয়া, পীরগাছা, কুড়িগ্রামের রাজারহাট, উলিপুর হয়ে চিলমারীতে গিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদে মিশেছে। ডিমলা থেকে চিলমারী এ নদীর বাংলাদেশ অংশের মোট ক্যাচমেন্ট এরিয়া প্রায় এক হাজার ৭১৯ বর্গকিলোমিটার। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ নদী কমিশন গঠনের পর তিস্তার পানি বণ্টন নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। ১৯৮৩ সালের জুলাই মাসে দুই দেশের মন্ত্রী পর্যায়ের এক বৈঠকে তিস্তার পানি বণ্টনে ৩৬ শতাংশ বাংলাদেশ, ৩৯ শতাংশ ভারত এবং ২৫ শতাংশ নদীর জন্য সংরক্ষিত রাখার বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। কিন্তু কোনো চুক্তি হয়নি। ২০০৭ সালের ২৫, ২৬ ও ২৭ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত বৈঠকে বাংলাদেশ তিস্তার পানির ৮০ শতাংশ দুই দেশের মধ্যে বণ্টন করে বাকি ২০ শতাংশ নদীর জন্য রেখে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল। ভারত সে প্রস্তাবে রাজি হয়নি। এরপর যুক্ত হয় মমতার আপত্তি। বাংলাদেশের কোনো প্রস্তাবের ব্যাপারেই অতীতে মমতার সম্মতি পাওয়া যায়নি। এখানে আরো একটি বিষয় বিবেচনায় নেওয়া প্রয়োজন। তিস্তার পানি বণ্টনে সিকিমকে জড়িত করার প্রয়োজন পড়েছে। কেননা সিকিম নিজে উজানে পানি প্রত্যাহার করে বাঁধ দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে। ফলে তিস্তায় পানির প্রবাহ কমে যাচ্ছে দিনে দিনে। পশ্চিমবঙ্গের উত্তরবঙ্গে কৃষকদের কাছে তিস্তার পানির চাহিদা বেশি। সেচকাজের জন্য তাদের প্রচুর পানি দরকার। এটা বরাবরই মমতার জন্য একটি ‘রাজনৈতিক ইস্যু’। সুতরাং মমতা তিস্তা চুক্তি করে বাংলাদেশের পানি প্রাপ্তি নিশ্চিত করবেন—এটা আমার কখনোই বিশ্বাস হয়নি। তাই মমতায় আস্থা রাখা যায় না। এ ক্ষেত্রে আমাদের যা করণীয়, তা হচ্ছে তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়টি অগ্রাধিকার দিয়ে ভারতের ওপর ‘চাপ’ অব্যাহত রাখা।

আমরা ভারতের অনেক ‘দাবি’ পূরণ করেছি। মোদির আমলে সীমানা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়ে দুই দেশের সীমানা এখন চিহ্নিত। দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এটি একটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি। এ ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতির পরও মমতা যদি তাঁর ওপর রাখা আস্থার প্রতিদান না দেন, তাহলে তা যে দুই দেশের সম্পর্কের মধ্যে একটা অবিশ্বাসের জন্ম  দেবে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গে রুদ্র কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন করার উদ্যোগ নিতে পারেন, যেখানে পশ্চিমবঙ্গের এই পানি বিশেষত বাংলাদেশকে ৫০ শতাংশ পানি দেওয়া সম্ভব বলে সুপারিশ করেছিল। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক প্রণব কুমার রায়ও এই সুপারিশ সমর্থন করেছিলেন। এর ভিত্তিতেই মমতা সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। তবে মমতাকে আস্থায় নেওয়া সত্যিকার অর্থেই কঠিন। ঢাকায় আসার আগে আত্রাই প্রসঙ্গটি তুলে তিনি একটি ‘জট’ লাগিয়ে গিয়েছিলেন। অর্থাৎ আত্রাইয়ের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়টি এক করে দেখেছেন। এটি একটি ভিন্ন বিষয়। আত্রাই নিয়ে আলোচনা হতে পারে। কিন্তু তিস্তার পানি প্রাপ্তি আমাদের অগ্রাধিকার। এর সঙ্গে অন্য কোনো ইস্যুকে তুলনা করা যাবে না। বাংলাদেশ সরকারকে দ্রুত তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়টি সামনে রেখে ভারতের সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নিতে হবে। সমুদ্রসীমাও নির্ধারিত হয়েছিল আন্তর্জাতিক আসরে। ‘দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় সমুদ্রসীমা নির্ধারিত হয়নি। আজকে প্রয়োজনে তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়টি আন্তর্জাতিক আসরে তুলে ধরতে হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ইচ্ছা-অনিচ্ছার ওপর আমাদের দেশের কোটি কোটি মানুষের বেঁচে থাকার বিষয়টি ঝুলে থাকতে পারে না।

লাখ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা তিস্তার পানির ওপর নির্ভরশীল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দয়াদাক্ষিণ্যের ওপর বিষয়টি নির্ভর করে না। ভাটির দেশ হিসেবে তিস্তার পানির ন্যায্য অধিকার আমাদের রয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এককভাবে পানি প্রত্যাহার করে নিতে পারেন না। তিনি তা যদি করেন, তাহলে তা হবে আন্তর্জাতিক আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এ ক্ষেত্রে মমতাকে নয়, বরং ভারতীয় কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর আমাদের চাপ অব্যাহত রাখতে হবে। তবে আমাদের ভুলে গেলে চলবে না, মমতা বারবার রং বদলাচ্ছেন। একবার বলেছিলেন তিনি ‘কাঠবিড়ালি’ হবেন। আর এবার বললেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা দেবেন। স্পষ্টতই এ ধরনের বক্তব্য দিয়ে তিনি অন্যদিকে দৃষ্টি সরাতে চান।

তিস্তা একটি আন্তর্জাতিক নদী। এ ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গ এককভাবে পানি প্রত্যাহার করতে পারে না। আন্তর্জাতিক নদীর পানি ব্যবহার সংক্রান্ত ১৯৬৬ সালের আন্তর্জাতিক আইন সমিতির হেলসিংকি নীতিমালার ৪ ও ৫ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, প্রতিটি অববাহিকাভুক্ত রাষ্ট্র, অভিন্ন নদীগুলো ব্যবহারের ক্ষেত্রে অবশ্যই অন্য রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক ও সামরিক প্রয়োজনকে বিবেচনায় নেবে। এখন পশ্চিমবঙ্গের পানি প্রত্যাহার বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক প্রয়োজনকে বিবেচনায় নেয়নি। হেলসিংকি নীতিমালার ১৫ নং অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, প্রতিটি তীরবর্তী রাষ্ট্র তার সীমানায় আন্তর্জাতিক পানিসম্পদের ব্যবহারের অধিকার ভোগ করবে যুক্তি ও ন্যায়ের ভিত্তিতে। কিন্তু এই ‘যুক্তি’ ও ‘ন্যায়ের ভিত্তি’ শব্দ দুটি উপেক্ষিত থাকে যখন পশ্চিমবঙ্গ বাংলাদেশকে তার ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করে। ১৯৯২ সালের ডাবলিন নীতিমালার ২ নং নীতিতে বলা হয়েছে, পানি উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা অবশ্যই সবার অংশগ্রহণমূলক হতে হবে। তিস্তার পানি ব্যবহারের ক্ষেত্রে এটি হয়নি। ১৯৯৭ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ‘জলপ্রবাহ কনভেনশন’ নামে একটি নীতিমালা গ্রহণ করে। এই নীতিমালার ৬ নং অনুচ্ছেদে পানি ব্যবহারের ক্ষেত্রে ‘যুক্তি ও ন্যায়পরায়ণতা’র কথা বলা হয়েছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের ব্যবহার, অর্থাৎ এককভাবে তিস্তার পানির ব্যবহার এই ‘যুক্তি ও ন্যায়পরায়ণতা’র  ধারণাকে সমর্থন করে না। আমরা আরো আন্তর্জাতিক আইনের ব্যাখ্যা দিতে পারব, যেখানে বাংলাদেশের অধিকারকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। বিশেষ করে পরিবেশসংক্রান্ত জীববৈচিত্র্য কনভেনশনের ১৪ নং অনুচ্ছেদ, জলাভূমিবিষয়ক রামসার কনভেনশনের ৫ নং অনুচ্ছেদ প্রতিটি ক্ষেত্রে পরিবেশের প্রভাব এবং উদ্ভিদ ও প্রাণী সংরক্ষণের যে কথা বলা হয়েছে, তা রক্ষিত হচ্ছে না। এখানে সমস্যাটা ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের। ভারতের ফেডারেল কাঠামোয় রাজ্য কিছু সুযোগ-সুবিধা ভোগ করে। কিন্তু কোনো রাজ্য (এ ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গ) এমন কিছু করতে পারে না, যা আন্তর্জাতিক আইনের বরখেলাপ ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে। সমস্যাটা ভারতের। পশ্চিমবঙ্গকে আশ্বস্ত করার দায়িত্ব কেন্দ্রীয় সরকারের। আমরা আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ীই আমাদের পানির হিস্যা নিশ্চিত করতে চাই।

তিস্তায় পানির প্রবাহ মারাত্মকভাবে কমে যাওয়ায় বাংলাদেশ এখন বড় ধরনের নিরাপত্তাঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। আমরা চাই এ সমস্যার স্থায়ী সমাধান। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বারবার ভারতীয় নেতাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, তিস্তা চুক্তি আমাদের অগ্রাধিকার। আমরা আমাদের ন্যায্য হিস্যা চাই। বর্তমান সরকারের সময় বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কে যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। দীর্ঘ ৪০ বছর ছিটমহল সমস্যা দুই দেশের মধ্যে আস্থার সম্পর্কের ক্ষেত্রে বড় জটিলতা সৃষ্টি করেছিল। এখন তা অতীত। ছিটমহল সমস্যার সমাধান হয়েছে।   বাংলাদেশ ভারতকে ‘ট্রানজিট’ দিয়েছে।   ভারত থেকে আমরা বিদ্যুৎ পাচ্ছি। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের সময় (২৭ মে ২০১৫) একটি চার দেশীয় উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতা (বিবিআইএন) চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এখন শুধু তিস্তা চুক্তির কারণে এই সম্পর্ককে আরো উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া যাবে না—এটা হতে পারে না। সুতরাং আমাদের প্রত্যাশা থাকবে, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের সময় বাংলাদেশ তিস্তা চুক্তির প্রসঙ্গটি উপস্থাপন করবে। এ ব্যাপারে ভারতে একটি জনমত সৃষ্টি করাও জরুরি।

বাংলাদেশ ভবিষ্যতে বড় ধরনের পানি সংকটের সম্মুখীন হবে। তিস্তায় পানি নেই। পানি নেই পদ্মায়ও। গড়াই শুকিয়ে গেছে। এ অবস্থায় পানির হিস্যা নিশ্চিত করতে ভারতের সহযোগিতা আমাদের দরকার। আমরা আশা করব, প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের সময় এই প্রশ্নটি জোরের সঙ্গে তিনি উত্থাপন করবেন।

 

লেখক : অধ্যাপক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক

tsrahmanbd@yahoo.com


মন্তব্য