kalerkantho

ব্যক্তিত্ব

৯ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ব্যক্তিত্ব

মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান

মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান বাংলাদেশের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ। ১৯২৯ সালের ৯ মার্চ কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার ভৈরবপুরে জন্ম।

তাঁর আইনজীবী বাবা মেহের আলী মিঞা ময়মনসিংহ লোকাল বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং জেলা বোর্ডের সদস্য ছিলেন। জিল্লুর রহমান ভৈরব কে বি হাই স্কুল থেকে ম্যাট্রিক, ঢাকা ইন্টারমিডিয়েট কলেজ থেকে আইএ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে বিএ ও এমএ করেন। পরে এলএলবি ডিগ্রি নেন। কলেজে পড়াকালে সিলেটে গণভোটের কাজে নেমে প্রথম বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্যে এসেছিলেন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনে তাঁর সক্রিয় ভূমিকা ছিল। ১৯ ফেব্রুয়ারি ছাত্রসমাবেশে সভাপতিত্ব করেছিলেন। ১৯৬৬ সালের ছয় দফা, ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থানসহ প্রতিটি গণ-আন্দোলনে তিনি সক্রিয় ছিলেন। ১৯৭০ সালে তিনি পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র পরিচালনা ও ‘জয় বাংলা’ পত্রিকা প্রকাশনার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

১৯৭২ সালে তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হন। ১৯৭৩ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৪ সালে তিনি আবার দলের সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৭৫ সালে বাকশাল পলিটব্যুরো ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ছিলেন বাকশালের চার সেক্রেটারির অন্যতম। ১৯৭৫ সালে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পর প্রায় চার বছর জেলে ছিলেন। ১৯৮১ সাল থেকে তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৬ সালে তিনি ফের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯২ সালে তিনি আবারও দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ সদস্য এবং ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তিনি মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালেও তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৭ সালে শেখ হাসিনা গ্রেপ্তার হলে তিনি ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দলের হাল ধরেন। ২০০৮ সালেও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরের বছর ১২ ফেব্রুয়ারি তিনি রাষ্ট্রপতি হিসেবে রাষ্ট্র পরিচালনার ভার নেন। নির্মোহ এই রাজনীতিবিদ ২০১৩ সালের ২০ মার্চ মৃত্যুবরণ করেন।

[বাংলাপিডিয়া অবলম্বনে]


মন্তব্য