kalerkantho

ভালো থাকুন

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ভালো থাকুন

গর্ভকালীন পিত্তে পাথর

পিত্তথলি আকৃতিতে ছোট হতে পারে, কিন্তু নারীর গর্ভকালে এটি বড় সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে। এমনিতেই পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের পিত্তথলিতে পাথরজনিত সমস্যায় বেশি ভুগতে দেখা যায়।

গর্ভকালে মহিলাদের শারীরবৃত্তীয় ও হরমোনজনিত পরিবর্তনের কারণে ও পিত্তথলির স্বাভাবিক সংকোচন কমে যাওয়ায় এ সমস্যার ঝুঁকি আরো বেড়ে যায়। অনেক সময় গর্ভাবস্থার অব্যবহিত পরেই প্রসূতিদের পিত্তথলিতে পাথর হতে দেখা যায়। তবে অনেক ক্ষেত্রেই এর বাহ্যিক কোনো উপসর্গ বা লক্ষণ দেখা যায় না। সে ক্ষেত্রে তাত্ক্ষণিক কোনো চিকিত্সা শুরু না-ও করতে হতে পারে। তবে কিছু ক্ষেত্রে জ্বর, চোখ ও প্রস্রাব হলুদ হওয়া, চুলকানি, বমি অথবা বমি বমি ভাব, পেটে ব্যথা প্রভৃতি হতে পারে। এসব সমস্যা দেখা দিলে দ্রুত চিকিত্সকের শরণাপন্ন হতে হবে। উপসর্গ ও লক্ষণ অনুযায়ী চিকিত্সক ওষুধ ও অন্যান্য পরামর্শ দিতে পারেন। পিত্তে পাথরের জটিলতায় গর্ভস্থ শিশুর স্বাস্থ্যঝুঁকিও বাড়ে। এ কারণে জটিল কিছু ক্ষেত্রে গর্ভবতী অবস্থায়ই পিত্তথলিতে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে প্রসবের নির্ধারিত তারিখের আগেই প্রসব করিয়ে ফেলার প্রয়োজন হতে পারে।  

ডা. মুনতাসীর মারুফ


মন্তব্য