kalerkantho

ব্যক্তিত্ব

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ব্যক্তিত্ব

জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী

শিক্ষাবিদ, অধ্যাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকীর জন্ম ১৯২৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি ঝিনাইদহ জেলার দুর্গাপুর গ্রামে। তাঁর বাবা ফজলুর রহমান সিদ্দিকী ও মা বেগম হালিমা খাতুন।

জিল্লুর রহমান যশোর জিলা স্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাস করে কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজে ভর্তি হন। ইংরেজি সাহিত্যে বিএ এবং ১৯৫১ সালে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। পরে অক্সফোর্ড থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে ১৯৫৪ সালে দেশে ফিরে ঢাকা কলেজে শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৫৫ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে যোগ দেন। পরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যুক্ত হন এবং ১৯৭৬ সালে উপাচার্যের দায়িত্ব পান। পরপর দুই দফা তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। ২০০০ সালে বেসরকারি গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য হন এবং তিন বছর পর সেখান থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেন। শিক্ষা গবেষণার মূল কাজ হলেও জাতীয় রাজনৈতিক সংকটে তাঁর ছিল দায়িত্বশীল ভূমিকা। ১৯৯০-৯১ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারে শিক্ষাবিষয়ক উপদেষ্টা ছিলেন তিনি।

বাংলা একাডেমি ও এশিয়াটিক সোসাইটির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সমিতি ও নাগরিক নাট্যচক্রের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। ইংরেজি-বাংলা মিলিয়ে তাঁর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ৪০। ‘শব্দের সীমানা’ প্রবন্ধ বইয়ের জন্য তিনি ‘আলাওল সাহিত্য পুরস্কার’ এবং ‘হৃদয়ে জনপদে’ কাব্যগ্রন্থের জন্য বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান। বইয়ের মধ্যে আরো উল্লেখযোগ্য হলো—বাঙালীর আত্মপরিচয়, কোয়েস্ট ফর অ্যা সিভিল সোসাইটি, বাংলা প্রবন্ধ পরিচয় : সংকলক ও সম্পাদনা, যখন তত্ত্বাবধায়ক সরকারে ছিলাম, আত্মজীবনী—আমার চলার পথে ইত্যাদি। বাংলা একাডেমির ‘ইংরেজি থেকে বাংলা’ অভিধানের সম্পাদক ছিলেন তিনি। ২০১০ সালে তিনি স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত হন। ২০১৪ সালের ১১ নভেম্বর তিনি মারা যান।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]


মন্তব্য