kalerkantho

ভালো থাকুন

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ভালো থাকুন

মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ভালোবাসা

ব্যক্তির মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর ভালোবাসার ইতিবাচক ভূমিকা রয়েছে। তবে এখানে ভালোবাসা বলতে আকর্ষণের প্রাথমিক উদ্দামতা, মোহগ্রস্ততা বা শুধু নর-নারীর আদিম প্রেমকে বোঝানো হচ্ছে না।

ভালোবাসা বলতে অন্তরঙ্গ ও উপভোগ্য একটি স্থায়ী সম্পর্কের ওপর জোর দিচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। এর পরিপ্রেক্ষিতেই ভালোবাসার ইতিবাচক প্রভাব বুঝতে গবেষণা করা হচ্ছে বিবাহিত ব্যক্তিদের ওপর। গবেষণায় দেখা গেছে, বিবাহিতদের তুলনায় অবিবাহিতদের বিষণ্নতা রোগের আশঙ্কা ৯ গুণ বেশি। বিচ্ছেদপ্রাপ্ত পুরুষদের আত্মহত্যাপ্রবণতা বিবাহিতদের দ্বিগুণ। বিবাহিত নারী-পুরুষদের অবিবাহিতদের তুলনায় অ্যালকোহল, মারিজুয়ানা ও কোকেনে আসক্ত হওয়ার ঝুঁকি কম। এক গবেষণায় দেখা গেছে, দীর্ঘমেয়াদি পানাসক্তদের ৭০ শতাংশ ছিল বিচ্ছেদপ্রাপ্ত, মাত্র ১৫ শতাংশ ছিল বিবাহিত। ভালোবাসার সময়টাতে মানুষ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি আনন্দিত থাকে—এরও বিজ্ঞানভিত্তিক প্রমাণ রয়েছে। রাটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে, কেউ যখন তার ভালোবাসার মানুষটির ছবির দিকে তাকায়, তখন মস্তিষ্কে ডোপামিন নামের রাসায়নিকের কার্যকারিতা বৃদ্ধি পায়, যেটি ইতিবাচকতা, শক্তি ও তৃপ্তিবোধের অনুভূতি বাড়ায়। আমেরিকান মনোরোগ বিশেষজ্ঞ জোসেপ হালেট বলেন, মানুষ যখন সুস্থ, অঙ্গীকারবদ্ধ সম্পর্কে যুক্ত থাকে, তাদের মধ্যে চাপ কম থাকে। আর কম চাপ মানেই সুস্বাস্থ্য।

ডা. মুনতাসীর মারুফ


মন্তব্য