kalerkantho


‘বিএনপির মেরুদণ্ড শক্ত নয়’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



‘বিএনপির মেরুদণ্ড শক্ত নয়’

নির্বাচন কমিশন (ইসি) নিয়ে সমলোচনা করতে হলে আগে রাজনৈতিক দলগুলোকে নিজেদের মেরুদণ্ড শক্ত করতে হবে বলে মন্তব্য করে সিনিয়র সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক আফসান চৌধুরী বলেছেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে না গিয়ে বিএনপি সরকারের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করেছে। তাদের উচিত আগে নিজেদের মেরুদণ্ড শক্ত করা।

কারণ নিজেদের মেরুদণ্ড শক্ত না হলে অন্যের সমালোচনা করা ঠিক হবে না। নতুন নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে কাজ করবে কি না, তা দেখার জন্য আরো কিছুটা সময় নিতে হবে। নিরপেক্ষ থেকে দায়িত্ব পালন করাটাই বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, ‘সরকার যাঁদের ভালো মনে করেছে তাঁদেরই এ পদে বসিয়েছে। আমি আশাও করছি না, আবার নিরাশও হচ্ছি না। তবে তাঁরা কাজ করুন, সবাই ভালো করবেন—এ আশা অন্তত করতে পারি। তা ছাড়া কারো কাজের আগে তো আর মূল্যায়ন করা ঠিক না। ’ মঙ্গলবার রাতে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আইয়ের সংবাদ পর্যালোচনাভিত্তিক টক শো আজকের সংবাদপত্রে আলোচনা করতে গিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

সাংবাদিক মীর মাসরুরুজ্জামানের সঞ্চালনায় আফসান চৌধুরী সমসাময়িক ঘটনাবলি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

আলোচনার শুরুতে সঞ্চালক জানতে চান, নতুন ইসি নিয়ে বিএনপি বলেছে, নতুন প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) দ্বারা সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। কারণ তিনি আগে একটি দলের পক্ষ হয়ে জনতার মঞ্চে গিয়েছিলেন। এতে মনে করা হচ্ছে, বিএনপির বিরোধী শক্তির সঙ্গে তাঁর সখ্য রয়েছে। কিন্তু অনেকে আবার বলছে, এখনো সময় আসেনি মন্তব্য করার। কারণ যাঁরা কাজই শুরু করতে পারলেন না তাঁদের নিয়ে আগে থেকেই সমালোচনা করা মানে তাঁদের চাপে রাখা। কিভাবে বিশ্লেষণ করবেন?

জবাবে আফসান চৌধুরী বলেন, সমালোচনা যে কেউ যে কারো করতে পারে। তবে যে সমালোচনাটা করা হচ্ছে, তা কতটা বাস্তবসম্মত সেটাও দেখতে হবে। যদি বিনা প্রয়োজনে সমালোচনা করা হয়, তবে তা সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয়, দক্ষ ও অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের নিয়েই ইসি গঠন করা হয়েছে। তাঁরা নিজেদের ক্ষেত্রে দক্ষ ও অভিজ্ঞ বলেই তাঁদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আশা করছি, নতুন সিইসি আমাদের শুধু নয়, পুরো দেশবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করবেন। ’

আলোচনার এ পর্যায়ে সঞ্চালক জানতে চান, গাইবান্ধায় পুলিশ সুপারকে উচ্চ আদালত প্রত্যাহারের জন্য বলেছেন। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি সাঁওতালপল্লীতে আগুন দিয়েছেন। কিভাবে বিশ্লেষণ করবেন?

জবাবে আফসান চৌধুরী বলেন, রক্ষক যখন ভক্ষক হয় তখন তো আর কোনো বিচার পাওয়া যাবে না। পুলিশদের কাজ হলো মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দেওয়া। আর আজ তাদের বিরুদ্ধেই যদি অভিযোগ তোলা হয়, তবে তো আর কিছু করার থাকে না। তিনি বলেন, ‘গাইবান্ধার এসপি (পুলিশ সুপার) আশরাফুল ইসলামকে অবিলম্বে প্রত্যাহার করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতালদের ঘরে আগুন দেওয়ার দিন এলাকায় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের প্রত্যাহার করারও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। আশা করছি, দোষীদের সরকার খুঁজে বের করে শাস্তির ব্যবস্থা করবে। এতে পুলিশ বাহিনীর সুনাম ফিরে আসবে। ’


মন্তব্য