kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নতুন স্নায়ুযুদ্ধের কবলে বিশ্ব

মুহা. রুহুল আমীন

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



নতুন স্নায়ুযুদ্ধের কবলে বিশ্ব

আন্তর্জাতিক রাজনীতির সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহ আন্তর্জাতিক সম্পর্কে কিছু মৌলিক প্রশ্ন সামনে নিয়ে এসেছে এবং উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সৃষ্ট বিতর্কগুলো নিয়েও আলোচনা চলছে। ক্রিমিয়ায় রাশিয়ান নীতি এবং এর প্রতি পাশ্চাত্যের চ্যালেঞ্জ, সিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ভূমিকা, এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে, বিশেষত দক্ষিণ চীন সাগরের উত্তেজনা, ব্রাজিলীয় প্রেসিডেন্টের অপসারণ-পরবর্তী লাতিন আমেরিকার শক্তিমান দেশগুলোর প্রতিক্রিয়া এবং সর্বোপরি ভারত-যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিপক্ষীয় স্ট্র্যাটেজিক সম্পর্কের কারণে সৃজিত আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক উত্তেজনা প্রভৃতি ইস্যুর কারণে অনেক আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক মনে করছেন যে পৃথিবী আবার স্নায়ুযুদ্ধের কবলে পড়েছে।

অনেকে ভাবছেন যে উল্লিখিত ইস্যুগুলো এতই তাত্পর্যপূর্ণ যে যেকোনো মুহূর্তে সেগুলো আঞ্চলিক বা বৈশ্বিক মহাযুদ্ধের সৃষ্টি করতে পারে। আবার অনেকে এমনও মন্তব্য করছেন যে বিশ্বযুদ্ধ এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে ভিন্ন প্রকৃতি, পরিধি ও বৈশিষ্ট্য ধারণ করে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পৃথিবীতে আধিপত্যবলয় গড়ার লক্ষ্যে সাবেক দুই পরাশক্তি সামরিক ও অর্থনৈতিকভাবে আফ্রো-এশীয় ও লাতিন-আমেরিকীয় রাষ্ট্রগুলোকে মৈত্রীত্বের বন্ধনে যুক্ত করার যে নীতি গ্রহণ করে, তা স্নায়ুযুদ্ধ নামে খ্যাত। স্নায়ুযুদ্ধ অবসানের পর সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে গেলেও রাশিয়া পুরনো পরাশক্তির শৌর্য-বীর্য নিয়ে তার মৈত্রী দেশগুলোসহ যুক্তরাষ্ট্র ও পাশ্চাত্যকে এমনভাবে চ্যালেঞ্জ করছে, যা স্নায়ুযুদ্ধেরই পুনরাবর্তনের দৃশ্য প্রতিভাত করছে।

ইউক্রেন-সংলগ্ন ক্রিমিয়ায় রাশিয়ার নীতিকে যুক্তরাষ্ট্র সামরিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে চ্যালেঞ্জ করেছে। রাশিয়াকে ন্যাটো জোটের পর্যবেক্ষক সদস্য পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং রাশিয়ার প্রতি অর্থনৈতিক অবরোধ চালু করা হয়েছে। এর পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে রাশিয়াও বাল্টিক সাগর ও কৃষ্ণসাগর এলাকায় সামরিক মহড়া জোরদার করে স্নায়ুযুদ্ধের পরিস্থিতির পুনরাবৃত্তি ঘটিয়েছে। প্রথম দিকে অনেক সামরিক বিশেষজ্ঞ ক্রিমিয়ার স্নায়ুযুদ্ধের পূর্বাভাস উড়িয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তাঁরা তাঁদের অবস্থান বদলে ফেলে বিশ্ব যে স্নায়ুযুদ্ধের জাঁতাকলে পিষ্ট হচ্ছে, এমন বাস্তবতা স্বীকার করে নেন।

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে সরানোর দ্ব্যর্থহীন ঘোষণা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র তার পাশ্চাত্য মিত্রদের নিয়ে বাশারবিরোধীদের সঙ্গে মিলে যুদ্ধ শুরু করেছিল। এর বিপরীতে পরবর্তী সময়ে রাশিয়া বাশারকে রক্ষা করার আপসহীন পাল্টা ঘোষণা দিয়ে বাশারবিরোধীদের ওপর আক্রমণ শুরু করে। আঞ্চলিক মিত্র ইরান এবং অন্যরা রাশিয়ার আক্রমণে সমর্থন ও সহযোগিতা করে। অবস্থা বেগতিক দেখে যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার সঙ্গে মিলে সিরিয়া থেকে আইএস বাহিনীকে হঠাতে সহযোগিতার আলোচনা শুরু করে। কিন্তু এ পর্যন্ত দুই পরাশক্তির সহযোগিতার উদ্যোগ বাস্তবায়িত হয়নি। দুই পরাশক্তি জেনেভায় কয়েক দফা মিলিত হয়ে সিরিয়ায় যুদ্ধবিরতি কার্যকর করতে এবং আইএসকে উত্খাত করতে উদ্যোগী হলেও কার্যত তা ব্যর্থ হয়েছে। সম্প্রতি হাংচৌ শহরে অনুষ্ঠিত জি-২০ সম্মেলনে ওবামা ও পুতিন যুদ্ধবিরতির লক্ষ্যে ‘গঠনমূলক বৈঠকে’ মিলিত হন। কিন্তু দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি ও সের্গেই ল্যাভরভ বারবারই কোনো ঐকমত্যে পৌঁছতে ব্যর্থ হচ্ছেন। গত ফেব্রুয়ারিতে তাঁরা একটি চুক্তি স্বাক্ষর করার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই তা অকার্যকর হয়ে যায়। গত ২৬ আগস্ট জেনেভায় এ দুই নেতা আবার মিলিত হয়ে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান। গত ৫ ও ৯ সেপ্টেম্বর জেনেভায় অনুষ্ঠিত আলোচনাও ব্যর্থ হয় এবং তাঁরা আবার কোনো চুক্তি সম্পাদনে অপারগ হন। শোনা যাচ্ছে, ১৮ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের সময় বিষয়টি নিয়ে আবার আলোচনা হলেও মৌলিক সিদ্ধান্তে পৌঁছতে তাঁরা ব্যর্থ হয়েছেন। সিরিয়ায় শেষ কথা হলো, বাশারের বিরুদ্ধে সক্রিয় আল-কায়েদাসংশ্লিষ্ট জঙ্গিদের ওপর থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও তার আরব মিত্রদের সাহায্য-সহযোগিতা বন্ধ করতে হবে। সিরিয়ায় সাবেক দুই পরাশক্তির পাল্টাপাল্টি অবস্থান দেশটির শান্তি প্রতিষ্ঠায় মারাত্মক ধরনের প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে।

এ গৃহযুদ্ধে মস্কো সমর্থন দিচ্ছে প্রেসিডেন্ট বাশার ও তাঁর বাহিনীকে, আর ওয়াশিংটন সমর্থন দিচ্ছে বাশারবিরোধী বিদ্রোহীদের।

দক্ষিণ চীন সাগরে আঞ্চলিক বৃহৎ শক্তিগুলোর উত্তেজনাপূর্ণ নীতিকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে তার স্বার্থ রক্ষার সুযোগ পুরোপুরি কাজে লাগাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে তার ‘পাইভোট টু এশিয়া’ নীতি এখন অধিকতর গুরুত্ব সহকারে বাস্তবায়িত হচ্ছে। ভৌগোলিক অবস্থান ও কৌশলগত কারণে দক্ষিণ চীন সাগরের আধিপত্য বিস্তার আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বৃহৎ শক্তিবর্গের একটি অগ্রাধিকারের বিষয়ে পরিণত হয়েছে। এ এলাকায় চীন একাধিক কৃত্রিম দ্বীপ বানিয়ে চীনের বাণিজ্যিক ও সামরিক তত্পরতা বৃদ্ধি করছে। ভিয়েতনামসহ প্রতিবেশী কিছু দেশ এ অঞ্চলের জলসীমার মালিকানা দাবি করছে। এ নিয়ে চীনের সঙ্গে ফিলিপাইন, ব্রুনেই, তাইওয়ান ও মালয়েশিয়ারও বিরোধ এখন তুঙ্গে। দক্ষিণ চীন সাগরের মধ্য দিয়ে ভারতের বাণিজ্যের প্রায় ৫০ শতাংশই সম্পন্ন হয়। ভিয়েতনামের প্রতিরক্ষা খাতে এবং ভারতের স্বার্থে ভারত ও ভিয়েতনাম প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা চুক্তিতে আবদ্ধ হচ্ছে। ২০১৪ সালে ভিয়েতনামের নৌবাহিনীর টহল যান কিনতে ১০ কোটি ডলার সাহায্যের ঘোষণা দিয়ে অত্রাঞ্চলে ভারতের স্বার্থের গুরুত্ব তুলে ধরে। ১৯৬২ সালে ভারত ও চীনের সংক্ষিপ্ত সীমান্ত যুদ্ধের পর থেকে এ পর্যন্ত চীন ও ভারতের চলমান স্নায়ুযুদ্ধের সম্প্রসারণ হিসেবে ভারত-ভিয়েতনামের সম্পর্ককে বিবেচনা করা যায়। গত ৩ সেপ্টেম্বর (২০১৬) ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভিয়েতনাম সফরকালে দেশটির প্রতিরক্ষা খাতে ৫০ কোটি মার্কিন ডলার সাহায্যের ঘোষণা স্নায়ুযুদ্ধ চলাকালে মার্কিন পরিকল্পনা, ট্রুমান ডকট্রিন ও কমিকনের ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি যেন।

গত ২৯ আগস্ট ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র বেশ ঘটা করে সামরিক সহযোগিতার ক্ষেত্রে যুগান্তকারী ‘লজিস্টিক এক্সচেঞ্জ মেমোরেন্ডাম অব এগ্রিমেন্ট’ বা লেমোয়া (LEMOA) চুক্তি স্বাক্ষর করে ভারত মহাসাগর এবং এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে আধিপত্য বিস্তারের গুরুত্বপূর্ণ কৌশল অবলম্বন করে। অনেক বিশ্লেষক এ চুক্তিকে চীন ও সমুদ্র নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অ্যাশ কার্টার ও মনোহর পারিকর পেন্টাগনে প্রত্যয়দীপ্ত ও ঔদ্ধত্যমিশ্রিত ভঙ্গিতে দুটি বক্তৃতা মঞ্চে দাঁড়িয়ে যখন লেমোয়া চুক্তি স্বাক্ষরের প্রেক্ষিত ব্যাখ্যা করছিলেন তখন স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল এ এক নব স্নায়ুযুদ্ধে বিশ্ব প্রবেশ করেছে। লেমোয়া স্বাক্ষরের পর ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র একে অপরের ঘাঁটি, স্থল, নৌ ও আকাশপথ ব্যবহার করতে পারবে। ভারতের একটি পত্রিকার মতে, ‘এখন থেকে ভারতের কোনো বিমানঘাঁটিতে আমেরিকান এফ-২২ বিমান নামা অথবা ভারতীয় কোনো এয়ারক্রাফটের সানডিয়েগো, ক্যালিফোর্নিয়া বা জাপানের ওকিনাওয়ায় ওঠানামার ব্যাপারটিকে খুব স্বাভাবিক বলেই মনে হবে। ’ এ চুক্তি স্বাক্ষরের সময় আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বাংলাদেশ ও ভারতে সফর করে অত্রাঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের দাপট রক্ষার বিষয়টিও জানান দিয়ে গেছেন। এ চুক্তির বিষয়ে ফোর্বসের সমরবিষয়ক লেখক চার্লস তিফিয়ে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র এ চুক্তির মাধ্যমে চীনকে মোকাবিলা করতে চায় এবং এশিয়াকে ঘেরাও করতে চায়। দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের কৃত্রিম দ্বীপ ও বিমানঘাঁটি নির্মাণের প্রত্যক্ষ প্রতিক্রিয়া হলো লেমোয়া চুক্তি। এখন যুক্তরাষ্ট্র শিগগিরই তার নৌবহরের ৬০ শতাংশ জাহাজ ইন্দো-প্যাসিফিক এলাকায় মোতায়েন করবে এবং অত্রাঞ্চলে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বৃহৎ শক্তির আধিপত্যকে মোকাবিলা করবে। ’

এখন যুক্তরাষ্ট্রের কৌশল হলো সাগরগুলোর নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করা এবং এভাবেই এশিয়াকে ঘিরে ফেলা। সম্ভবত উনিশ শতকের মার্কিন নৌ কৌশলবিদ আলফ্রেড থায়ের মাহান তাঁর ১৮৯৭ সালে প্রকাশিত গ্রন্থ ‘দ্য ইন্টারেস্ট অব আমেরিকা ইন সি পাওয়ার’-এর মাধ্যমে যে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, তা আজ সত্যে পরিণত হচ্ছে। তাঁর মতে, যে দেশ সমুদ্র করায়ত্ত করতে পারবে, সে বিশ্ব শাসন করতে পারবে। ফলে বড় শক্তি হওয়ার ইচ্ছা থাকলে কোনো দেশকে আশপাশের জলসীমা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। বর্তমান বিশ্বের প্রথম নৌ শক্তিসম্পন্ন দেশ যুক্তরাষ্ট্র পৃথিবীর দ্বিতীয় নৌ শক্তিসম্পন্ন দেশ চীনকে চ্যালেঞ্জ করে বর্তমান যুগের স্নায়ুযুদ্ধের নতুন প্রকৃতি বিকশিত করছে। রাশিয়া, চীন ও মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের লেমোয়া চুক্তির বিপক্ষে যাবে বলে ভারতের অনেক অভ্যন্তরীণ প্রতিবাদ থাকলেও মোদির সরকার বৈশ্বিক আধিপত্য বিস্তারের বৃহত্তর লক্ষ্যে চীন, রাশিয়া, মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক রাষ্ট্রগুলোর বিপক্ষে জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রতাকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। স্পষ্টত যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, জাপান, অস্ট্রেলিয়া তাদের মিত্র দেশসহ রাশিয়া, চীন, ইরান ও মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিবাদী রাষ্ট্রগুলোর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবে স্নায়ুযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে।

অতি সম্প্রতি তুরস্কের সরকার উত্খাতে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থান এবং ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের অপসারণের পর এ দুটি ঘটনার পেছনে যুক্তরাষ্ট্রের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ উঠেছে। তুরস্ক ও যুক্তরাষ্ট্রের সদ্য নির্মিত সম্পর্ক ভেঙে গেছে এবং তুরস্ক নতুনভাবে রাশিয়ার সঙ্গে মৈত্রী বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছে। রাশিয়া, তুরস্ক, ইরান মিলে এখন মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের বিরুদ্ধে স্নায়ুযুদ্ধের প্রেক্ষিত রচনা করছে। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট দিউমা হুসেফের অপসারণকে ‘অভ্যুত্থান’ হিসেবে চিহ্নিত করছে এবং ভেনিজুয়েলা, ইকুয়েডর ও বলিভিয়ার রাষ্ট্রদূতদের এ ব্যাপারে প্রতিবাদ জানাতে বলা হয়েছে। লাতিন আমেরিকার বামপন্থী রাষ্ট্রগুলোর মতে, এ অভ্যুত্থানের পেছনে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র এবং এটা দিউমার বিরুদ্ধে নয়—এ অভ্যুত্থান লাতিন আমেরিকার বিরুদ্ধে, ক্যারিবীয়দের বিরুদ্ধে, লাতিন আমেরিকার গণতন্ত্র, শান্তি, ন্যায়বিচার, উন্নয়ন ও সংহতির বিরুদ্ধে। স্পষ্টত লাতিন আমেরিকায় এখন স্নায়ুযুদ্ধের অবস্থা বিরাজ করছে।

উপরোক্ত ঘটনাবলির বিশ্লেষণে অনেকেই বলছেন, বিশ্ব এখন স্নায়ুযুদ্ধের যুগ অতিক্রম করে একটি প্রত্যক্ষ যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ছে। অনেকে বলছেন, এরই মধ্যে বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। তবে তার প্রকৃতি একটু ভিন্ন ধরনের। লাতিন আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্য, এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকাসহ সর্বত্র স্পষ্টত দুটি ভাগে বিশ্ব শক্তিগুলো বিভক্ত হয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত আধিপত্য রক্ষার লড়াই চলছে প্রতিদ্বন্দ্বী রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে, যার প্রকৃতি ও বৈশিষ্ট্য অনেকটা স্নায়ুযুদ্ধের সঙ্গে মিলে যায়। তবে অত্রাঞ্চলের আধিপত্যের লড়াইকে ভুলভাবে পরিচালনা করলে যেকোনো মুহূর্তে তা বিপর্যয়কর মহাযুদ্ধের রূপ পরিগ্রহ করবে। তাই বলা যায়, এরই মধ্যে শুরু হয়েছে বিশ্বযুদ্ধ।

এখন জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, চীন, ভারত, ইইউসহ আঞ্চলিক ও বিশ্ব শক্তিধর রাষ্ট্র ও প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর গুরুদায়িত্ব কিভাবে যুধ্যমান অবস্থার নিরসন করা যায়। কিভাবে প্রতিটি অঞ্চলের শত্রুতা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাকে সীমিত পর্যায়ে রাখা যায় এবং কিভাবে সব দেশের স্বার্থের যৌক্তিক বাস্তবায়ন ঘটিয়ে বিশ্বকে তৃতীয় মহাযুদ্ধের সর্বাত্মক ধ্বংস থেকে রক্ষা করা যায়। এই একটি লক্ষ্যেই কাজ করতে হবে এখন আন্তর্জাতিক সমাজকে।

লেখক : অধ্যাপক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ,

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

mramin68@yahoo.com


মন্তব্য