kalerkantho

ব্যক্তিত্ব

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ব্যক্তিত্ব

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়

দুই বাংলার জনপ্রিয় সাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি একাধারে কবি, ঔপন্যাসিক, ছোটগল্পকার, সম্পাদক, সাংবাদিক ও কলামিস্ট ছিলেন।

জন্ম বাংলাদেশে, মাদারীপুর জেলার মাইজপাড়া গ্রামে, ১৯৩৪ সালের ৭ সেপ্টেম্বর। বাবা ছিলেন স্কুল শিক্ষক। চার বছর বয়সে কলকাতায় চলে যান। সুরেন্দ্রনাথ কলেজ, দমদম মতিঝিল কলেজ, সিটি কলেজ পেরিয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় এমএ করেন ১৯৫৪ সালে। কিছুদিন গতানুগতিক চাকরি করে সুনীল সাংবাদিকতায় স্থায়ী হন। ১৯৫৩ সালে কয়েকজন বন্ধুসহ তিনি কবিতা পত্রিকা ‘কৃত্তিবাস’ সম্পাদনা করতে শুরু করেন। আমৃত্যু ‘দেশ’ পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। সাহিত্যে প্রবেশ কবিতা দিয়ে। লেখালেখিতে ‘নীললোহিত’, ‘সনাতন পাঠক’ ও ‘নীল উপাধ্যায়’ প্রভৃতি ছদ্মনাম ব্যবহার করেছেন। প্রথম উপন্যাস ‘আত্মপ্রকাশ’ (১৯৬৬), প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘একা এবং কয়েকজন’ (১৯৫৮)। সাহিত্যের সব শাখায় বিচরণ করেছেন। কাব্যগ্রন্থ ‘আমি কী রকমভাবে বেঁচে আছি’, ‘হঠাৎ নীরার জন্য’; উপন্যাস ‘অরণ্যের দিনরাত্রি’, ‘অর্জুন’, ‘প্রথম আলো’, ‘সেই সময়’, ‘পূর্ব পশ্চিম’, ‘মনের মানুষ’; আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ ‘অর্ধেক জীবন’ ও ‘ছবির দেশে কবিতার দেশে’; কিশোর গোয়েন্দা সিরিজ ‘কাকাবাবু-সন্তু’সহ অসংখ্য রচনা তাঁকে অমর করে রাখবে। সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার, আনন্দ পুরস্কার, বঙ্কিম পুরস্কারসহ বহু স্বীকৃতি তিনি লাভ করেন। ২০০৮ সালে ভারতের সাহিত্য আকাদেমির প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তিনি পশ্চিমবঙ্গ শিশু-কিশোর আকাদেমির সভাপতিরও দায়িত্ব পালন করেন। ২০১২ সালের ২৩ অক্টোবর জনপ্রিয় এই কথাসাহিত্যিক মারা যান।


মন্তব্য