kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

ব্যক্তিত্ব

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ব্যক্তিত্ব

আব্দুল জলিল

রাজনীতিবিদ আব্দুল জলিলের জন্ম নওগাঁয় ১৯৪১ সালের ২১ জানুয়ারি। বাবা ফয়েজউদ্দিন আহমেদ ছিলেন ব্যবসায়ী।

স্থানীয় প্রাথমিক স্কুল পেরিয়ে নওগাঁ কে ডি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন এবং ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেন। রাজশাহী কলেজ থেকে আইএ পাস করে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শেষ করে আইন পড়ার জন্য লন্ডনে গিয়েছিলেন। শেষ না করেই ১৯৬৯ সালে দেশে ফিরে আসেন। ১৯৭১ সালে তিনি নওগাঁসহ উত্তরাঞ্চলে মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠিত করে সীমান্তে ট্রেনিং ক্যাম্প পরিচালনা করেন। তিনি ৭ নম্বর সেক্টরের প্রধান সংগঠক ও যোদ্ধা ছিলেন। ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম নির্বাচনে তিনি নওগাঁ সদর আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। চার বছর পর তিনি মুক্তি পান। ১৯৮১ সালে তিনি আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক হন। ১৯৮২ সালে সামরিক শাসন জারি করা হলে আবারও তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯৮৩ সালে তিনি দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান। ১৯৮৪ ও ১৯৮৮ সালে পর পর দুইবার তিনি নওগাঁ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ১৯৮৬ সালে তিনি আবার নওগাঁ সদর আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং সংসদে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৩ সালে তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হন। ১৯৯৬ সালে গঠিত আওয়ামী লীগ সরকারে তিনি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী। ২০০১ ও ২০০৮ সালেও তিনি নওগাঁ সদর আসনে জয়লাভ করেন। ২০০২ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মৃত্যুর আগ পর্যন্ত উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। ২০১৩ সালের ৬ মার্চ এই রাজনীতিবিদ মারা যান।


মন্তব্য