kalerkantho

মঙ্গলবার। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ । ৯ ফাল্গুন ১৪২৩। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮।

ভালো থাকুন

১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ভালো থাকুন

শিশুর আক্রমণাত্মক স্বভাব প্রতিরোধে

শিশুর মাঝে যেন আক্রমণাত্মক স্বভাব গড়ে না ওঠে সে জন্য অভিভাবকদের আগে থেকেই সতর্ক থাকা উচিত। সন্তানের সঙ্গীদের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে পরিচিত হোন, উগ্র স্বভাবের বন্ধুর সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে নিরুৎসাহ করুন। তবে অতিরিক্ত নজরদারি করবেন না। সন্তানের সামনে অন্যের কাছে তার ব্যাপারে নেতিবাচক কথা বলবেন না। তার সামনে দাম্পত্য কলহ এড়িয়ে চলুন। টিভি-কম্পিউটারে ধ্বংসাত্মক অনুষ্ঠানের পরিবর্তে শিক্ষামূলক ও সুস্থ বিনোদনমূলক কার্টুন, অনুষ্ঠান দেখতে উৎসাহিত করুন। তাকে সৃজনশীল কাজে এবং মাঠে খেলাধুলায় অংশগ্রহণের সুযোগ করে দিন। শিশুর মাঝে মারামারির প্রবণতা দেখা দিলে তাকে শারীরিক শাস্তি দেওয়া কোনো সমাধান নয়। রূঢ় আচরণ না করে তাকে প্রত্যাশিত আচরণের জন্য বুঝিয়ে বলুন, আচরণ পরিবর্তনের সুযোগ দিন। প্রত্যাশিত আচরণ না করলে প্রাপ্য পুরস্কার বন্ধ রাখুন; কিন্তু কটূক্তি, বকাঝকা বা শারীরিক শাস্তি দেওয়াটা কাম্য নয়। স্কুল, বাড়ি বা অন্য কোনো বিষয়ে শিশুর মধ্যে কোনো মানসিক চাপ রয়েছে কি না তা জানার চেষ্টা করুন। নির্দিষ্ট কোনো মানসিক রোগ বা মাদকাসক্তির কারণে শিশুর মাঝে হিংস্রতা গড়ে উঠছে কি না তা নিরূপণ এবং চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনে মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

ডা. মুনতাসীর মারুফ


মন্তব্য