kalerkantho


যানজট নিরসনের জন্য যা করণীয়

২৬ মে, ২০১৮ ০০:০০



রাজধানীর বাইরে দেশের সব মহাসড়কের ক্ষতিগ্রস্ত জায়গাগুলো মেরামত করতে হবে। বিশেষ করে ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-জয়দেবপুর ও টাঙ্গাইল সড়কের মেরামতকাজ ত্বরান্বিত করবে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর (সওজ)। যদিও ৮ জুনের মধ্যে ভাঙাচোরা সড়ক সংস্কারকাজ শেষ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ঈদে মহাসড়কে যানজট ও ভোগান্তি রোধে পুলিশ, সড়ক ও জনপথ এবং স্থানীয় প্রশাসনকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। ঈদের আগের সাত দিন এবং পরের সাত দিন চট্টগ্রাম, টাঙ্গাইল, জয়দেবপুরসহ গুরুত্বপূর্ণ সব সড়কে চলমান উন্নয়নকাজ বন্ধ রাখতে হবে। যান চলাচল নির্বিঘ্ন করতে সড়ক দখলমুক্ত করতে হবে। কোনোভাবে সড়ক দখল করে ভাসমান দোকানপাট বসানো যাবে না। যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং ও যাত্রী ওঠানামা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পদক্ষেপ নেবে। লক্কড়ঝক্কড় মার্কা যানবাহন যেন রাস্তায় চলতে না পারে, সে জন্য পদক্ষেপ নেবে বিআরটিএ। পুরনো যানবাহন চালাতে হলে প্রয়োজনীয় মেরামতকাজ সম্পন্ন করেই নামাতে হবে। পোশাক কারখানাগুলোয় আলাদা দুই দিনে ছুটি দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। ঘরমুখো মানুষের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে মহাসড়কে হাইওয়ে, কমিউনিটি পুলিশের পর্যাপ্ত উপস্থিতি থাকতে হবে। গুরুত্বপূর্ণ ইন্টারসেকশনগুলোতে সড়ক শৃঙ্খলায় রাখতে হবে। গাবতলীসহ ঢাকার প্রবেশমুখগুলোতে যানবাহন চলাচলে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হবে।

মো. হাসানুর রহমান

মাজিহাট, কুষ্টিয়া।



মন্তব্য