kalerkantho


প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে

৩ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



শত বছর ধরে বাংলা অঞ্চলের সভ্যতা ও বাণিজ্যের কেন্দ্র ছিল আজকের দিনের পুরান ঢাকা। এখানে-ওখানে ছড়ানো-ছিটানো পার্ক ও খোলা জায়গার পাশাপাশি স্বাদু পানির লেক ও নদী এই ঢাকাকে অনন্য করে তুলেছিল। অনেক শিশু তাদের বন্ধুদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলতে বাইরে যেতে চায়, তারাও এসব পার্কের বাইরে বসে থাকে। প্রহরী না থাকলে তারা চুপ করে পার্কে ঢুকে মাত্র কয়েক ওভারের ম্যাচ খেলে আবার ফিরে যায়। তাই ঘরকুনো হয়ে ভিডিও গেমস খেলার প্রবণতা নিয়ে যতই সমালোচনা করা হোক, খেলার মতো জায়গা তাদের না দিতে পারলে বাইরে বেরিয়ে খেলার সুযোগ তারা পাবেই না। শুধু শিশুদের জন্য নয়, পার্কগুলো বয়স্কদের জন্যও হতে পারে একটু শ্বাস ফেলার জায়গা। বদ্ধ ঘরের বাইরে বেরিয়ে তারা একটু নির্মল বাতাসের সন্ধান পেতে পারেন পার্কগুলোতে। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, পুরান ঢাকার অনেক পার্ক এখন গাড়ি ও রিকশার গ্যারেজে পরিণত হয়েছে। অনেক পার্ক কারো কারো আয়ের উৎস হয়ে উঠেছে। কিছু কিছু পার্কে যৌনকর্মী ও মাদক বিক্রেতারা অবাধে নিজেদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। আর যাদের কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই, সেই উদ্বাস্তুরাও ঠিক পার্কের কোনাগুলোতে ঘর তুলে একে বস্তিতে রূপ দিয়েছে। আবার কিছু পার্কের অবস্থা একটু ভালো। এগুলো নিয়মিত পরিষ্কার করা হয়। কিন্তু এসব পার্ক আবার রাজনৈতিক সভার জন্য নির্ধারিত স্থানে পরিণত হয়েছে। আশা করি সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

সাকিব আল হাসান

রৌমারী, কুড়িগ্রাম।



মন্তব্য