kalerkantho


পাঠদান আনন্দদায়ক হতে হবে

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



মানসম্মত শিক্ষা গড়ে তুলতে প্রশিক্ষণের কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু শুধু প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করলেই চলবে না, প্রশিক্ষণ থেকে অর্জিত জ্ঞান শ্রেণি পাঠদানে শিক্ষক কর্তৃক যথাযথভাবে প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।

শিক্ষককে অবশ্যই বার্ষিক ও দৈনিক পাঠ পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং সেই আলোকে পূর্বপ্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন করতে উৎসাহিত করতে হবে এবং হাসিমুখে তার উত্তর দিতে হবে। শিক্ষার্থীরা যেন নিজের ভাষায় নিজের মতো করে মনের ভাব প্রকাশের সুযোগ পায়। স্কুলে সবল ও দুর্বল শিক্ষার্থী থাকে, সে অনুযায়ী তাদের গুরুত্ব দিয়ে যতটুকু সম্ভব ভারসাম্যপূর্ণ পরিবেশে শিখন-শেখানো কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। এ ক্ষেত্রে ইসিএল এবং ডিপিএডের আলোকে স্তরভিত্তিক পাঠদান অধিকতর ফলপ্রসূ হতে পারে। বিদ্যালয়ের ক্যাচমেন্ট এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে যতটুকু সম্ভব বিদ্যালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে এবং এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির ভূমিকা কার্যকর করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে—যদি শিক্ষক-শিক্ষার্থী মিথস্ক্রিয়া এবং একক চিন্তন, জোড়ায় আলোচনা, দলীয় কাজ, হাতে-কলমে শিক্ষাদান ও গ্রহণ এবং বাস্তব উপকরণ ও অভিজ্ঞতাসমৃদ্ধ, আনন্দ পাঠদান না হয়।

 নৌশিন নাওয়াল সুনম

পশ্চিম টেংরী, ঈশ্বরদী, পাবনা।

 


মন্তব্য