kalerkantho


অত্যাধুনিক প্রশিক্ষণ দরকার

১৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



জঙ্গিবাদ এখন বৈশ্বিক বিষয়, সারা বিশ্বেই এ সমস্যা ছড়িয়েছে। আমাদের মতো জনবহুল দেশও জঙ্গিবাদের বড় হুমকিতে থাকবে বা জঙ্গি কর্মকাণ্ড বাড়বে—এটাই স্বাভাবিক। ধর্মান্ধ একশ্রেণির মানুষ তাদের ভুল আদর্শ বাস্তবায়নে চরমপন্থা বেছে নিচ্ছে। তারা জিহাদের অপব্যাখ্যা দিয়ে সহজ-সরল মানুষ ও তরুণদের দলে ভেড়ানোর কৌশল নিয়েছে। তারা অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারেও পারদর্শী। বিষয়টি অতি স্পর্শকাতর। তাই জঙ্গি দমনে চলমান কৌশলে পরিবর্তন এনে সর্বসাধারণকে সচেতন করার বিষয়টি সংযুক্ত করতে হবে। গণতান্ত্রিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধ দুটোরই যথার্থ প্রয়োগ হতে হবে। বিচ্ছিন্নতাবাদও কাউকে কাউকে জঙ্গিবাদের দিকে নিয়ে যায়। তাই পারিবারিক সম্প্রীতি বাড়াতে হবে। রাষ্ট্র, সমাজ বা পরিবারিক বৈষম্য থেকে একজন অল্প বয়সী ছেলে ভুল পথে ধাবিত হতেই পারে।

নীতিনির্ধারকদের বিষয়টি উপলব্ধি করতে হবে। জঙ্গিবাদে জড়িত ব্যক্তিদের জীবিত ধরার ওপরও জোর দিতে হবে। তখন তাদের থেকে প্রাপ্ত তথ্য কাজে লাগবে। এ কারণেই যারা অভিযান চালাবে তাদের অত্যাধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহারে দক্ষতা আবশ্যক। স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়সহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে নিবিড় নজর রাখতে হবে, যাতে ভুল শিক্ষা নিয়ে কেউ জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ না হয়। সমস্যা হয়তো রাতারাতি নির্মূল করা যাবে না, নিয়ন্ত্রণের ওপর আপাতত জোর দিতে হবে। তখন এমন একদিন হয়তো আসবে, যেদিন জঙ্গিবাদ বলে আর কিছু থাকবে না।

 

আসাদুল্লাহ মুক্তা

মহেশপুর, উল্লাপাড়া, সিরাজগঞ্জ।


মন্তব্য