kalerkantho


আমরা কিছুটা উদ্বিগ্ন

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



নতুন প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিয়ে বিশেষ করে বিএনপি কিছু বিতর্ক তুলেছে। অনেক সাধারণ মানুষও বলছে, জমা পড়া নামের মধ্যে তুলনামূলক বেশি নিরপেক্ষ ব্যক্তি আরো ছিলেন।

তাঁদের কমিশনে নেওয়া হয়নি। বিদায়ী সিইসিও বলেছেন, ‘আমাদের পরে যাঁরা আসছেন তাঁরা আমাদের মতোই হবেন। ’ তিনি আসলে কী ইঙ্গিত দিয়েছেন? মনে কি হয় না, সরকার একটি পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে? সামনে কী হবে জানি না। সব মিলিয়ে আমরা কিছুটা উদ্বিগ্ন। নির্বাচন কমিশন গঠনে আমরা আরো নিরপেক্ষতা আশা করেছিলাম।

বিএনপির অবস্থা যেটুকু বুঝতে পারছি, সামনের অবস্থা খারাপ হতেও পারে। আমরা সাধারণ মানুষ আশা করছি, নির্বাচন কমিশনকে কাজ করার সময় দেওয়া উচিত। তারা কী করতে পারে না পারে দেখি। তারপর সমালোচনা করা যাবে।

শুধু শুধু সন্দেহ না করাই ভালো। প্রধান নির্বাচন কমিশনারের মনে কী আছে, তাঁর কাজের মধ্য দিয়েই স্পষ্ট হবে। তিনি নিরপেক্ষভাবে কাজ করে গেলে দেশের মানুষ তাঁকে ইতিহাসের পাতায় উজ্জ্বলভাবে স্থান দেবে। আমাদের প্রত্যাশা, নির্বাচন কমিশনের সবাই সাধারণ মানুষের এই প্রত্যাশার দিকটি মাথায় রেখে নিরপেক্ষভাবে কাজ করে যাবেন। তাঁরা পক্ষপাতিত্ব করলে প্রমাণ হয়ে যাবে, বিএনপি এখন যেসব কথা বলছে, তা ভিত্তিহীন নয়!

 

মোহাম্মদ আলী

বোরহানপুর, হাজারীবাগ রোড, ঢাকা।


মন্তব্য