kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আসুন, সোচ্চার হই

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



নারী হয়ে জন্মানোই যেন অপরাধ। রাস্তাঘাট, কর্মক্ষেত্র, শিক্ষাক্ষেত্র—আজ কোথাও নিরাপদে নেই নারী।

কোনো কাজে যোগদানের আগে একজন নারীকে হাজারো চিন্তা করতে হয়, সহকর্মীর লোলুপ দৃষ্টি থেকে রেহাই পাবে তো! ছোটবেলা থেকে একটি মেয়েকে শেখানো হয় কিভাবে নিজেকে নিরাপদে রাখতে হবে। বেচারিকে খেলার আনন্দের সময়ও নিজের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবতে হয়। আবার দেখা যায়, সমাজের কিছু তথাকথিত ‘বিচারক’ উল্টো সব কিছুর জন্য মেয়েটিকেই দোষী সাব্যস্ত করে। একজন মেয়ে ধর্ষিত হলে সবার আগে আলোচনায় আসে মেয়েটি পর্দা করত কি না। আর যখন হিজাব পরিহিত ‘তনু’রা ধর্ষিত হয় তখন বলা হয়, মেয়েটির স্বভাব-চরিত্র ভালো ছিল তো? এ জাতিকে সভ্য জাতিতে পরিণত করতে চাইলে সবার আগে ‘অজুহাত’ শব্দটিকে মুছে দিতে হবে।

অজুহাত কোনো সমাধান নয়। একে অন্যের থেকে নিজেকে আলাদা না ভেবে নিঃস্বার্থ চিন্তাটাই একমাত্র সমাধান। একটি নারীকে শিকল দিয়ে আবদ্ধ করে রাখাটাও কোনো সমাধান নয়। যেখানে সাধারণ মানুষের ভাবনাটাই নিরাপদ নয়, সেখানে মানুষের নিরাপত্তা অনেক কঠিন চাওয়া। তবুও আমরা আশাবাদী, একদিন এ নষ্ট সমাজ পচতে পচতেও বেঁচে উঠবে। সরকার ও সবার সহযোগিতা থাকলে এটি অসম্ভব কিছু নয়। আসুন, সোচ্চার হই নারী নির্যাতনকারীর বিরুদ্ধে, রুখে দিই নারী লাঞ্ছনাকারীকে।

সোলায়মান শিপন

সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ।


মন্তব্য