kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ব্যবসায়ীদের অজুহাত ভিত্তিহীন

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



চামড়ার আন্তর্জাতিক বাজার কি আসলেই পড়তি? গতবারের এ সময়ের তুলনায় এখন আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার দর কম হলেও গত ফেব্রুয়ারি থেকে বিদেশে চামড়ার দামের কোনো অদলবদল হয়নি। ঈদের কয়েক দিন আগেও প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ট্যানারি মালিকরা ৫৫ থেকে ৬০ টাকা দরে কিনেছেন।

আর ওই চামড়াগুলো মানের বিচারে একেবারেই নিম্ন ধরনের। তার থেকে কোরবানির চামড়া আকাশ-পাতাল উন্নতমানের হওয়ায় দরটাও তেমন হওয়ারই কথা ছিল। কিন্তু কেন তার বিপরীতটাই হলো?

বাংলাদেশের পশুর চামড়ার মান দুনিয়ার এক নম্বরে! এ কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে গড় দরের চেয়ে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের চামড়ার দর সব সময় চড়া থাকে।

গত ফেব্রুয়ারি থেকে চামড়ার আন্তর্জাতিক দর প্রতি পাউন্ড ৭০ সেন্ট। আমাদের বন্ধু রাষ্ট্র ভারতের একেবারেই নিম্নমানের পশুর চামড়ার দাম দেশটির বাজারে প্রতি বর্গফুট ৮০ থেকে ৯০ টাকা। পাকিস্তানেও চামড়ার দাম বাংলাদেশের চেয়ে বেশি। জানা যায়, ট্যানারিপল্লী স্থানান্তরে সরকারের নির্দেশনা ও উচ্চ আদালতের আরোপ করা জরিমানার অর্থ উসুল করতেই ট্যানারি মালিকদের এমন পরিকল্পনা। সেটা তাঁরা চাইতেই পারেন। তবে প্রশ্ন হলো, ৯ সেপ্টম্বরের এমন দরের সঠিক-বেঠিক কি নিরপেক্ষভাবে সরকারি তদন্ত হয়েছে? আমাদের প্রত্যাশা, সরকার ব্যবসায়ীদের সব যুক্তি খতিয়ে দেখে এরপর সিদ্ধান্ত নেবে।

ফকির আব্দুল্লাহ আল ইসলাম

বাগেরহাট সদর।


মন্তব্য