kalerkantho


শিশু যৌননিপীড়ন প্রসঙ্গ

২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



শিশু যৌননিপীড়ন প্রসঙ্গ

পত্রিকায় প্রতিদিন ধর্ষণ শব্দটি দেখছি। কিন্তু ধর্ষণ শব্দটির আগে যখন শিশু শব্দটি যোগ হতে দেখি তখন বুকের পাঁজরে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভূত হয়। জানি না রোগটি কি বিধাতা শুধু আমায় দিয়েছেন, নাকি সবারই আমার মতো ব্যথা অনুভূত হয়। এ ব্যথা কতটা মারাত্মক, তা নিজের পরিবার ও প্রিয়জনের সঙ্গে না ঘটলে উপলব্ধি করা কঠিন। পত্রিকা সূত্রে জানতে পারলাম, রাজধানীর ডেমরায় একটি বাসার খাটের নিচ থেকে শিশু দুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। লিপস্টিক দিয়ে সাজিয়ে দেওয়ার নাম করে শিশু দুটিকে বাসায় ডেকে ধর্ষণ করতে চেয়েছে কিছু পশু। দিনের পর দিন এভাবে ছোট ছোট নিষ্পাপ শিশুর সঙ্গে অন্যায় চলছে আর সমাজের বিবেকবান মানুষেরা এসব দেখে নিন্দা জানিয়ে নাক ঢেকে ঘুমাতে যান। তাঁদের যদি ব্যথা থাকত, তাহলে এমন নিষ্ঠুর ঘটনাগুলোর পরও তাঁরা চুপ করে বসে থাকতে পারতেন না। এ বিষয়ে সমাজের এবং রাষ্ট্রের কঠোর ভূমিকা পালন করা উচিত। ধর্ষণ তথা যৌন নির্যাতন হ্রাসের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখতে পারে রাষ্ট্র। যদি ধর্ষককে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া যায়, তাহলে এ ঘটনা হ্রাসের পাশাপাশি বন্ধও হতে পারে। সমাজ এবং পরিবারও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

আজহার মাহমুদ, ঢাকা।



মন্তব্য