kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ডাকবাংলোগুলো ও কেয়ারটেকার

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ডাকবাংলোগুলো ও কেয়ারটেকার

দেশের প্রতিটি উপজেলায় সরকারিভাবে জেলা পরিষদের ডাকবাংলো আছে, যেখানে সরকারি কর্মকর্তারা দাপ্তরিক কাজে এসে অবস্থান করে থাকেন। এখানে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ভাড়া বা ফি দিতে হয়।

কিন্তু অধিকাংশ ডাকবাংলোয় প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে বা প্রশাসনকে ম্যানেজ করে কেয়ারটেকাররা বিভিন্ন শ্রেণির মানুষকে রাত যাপনের সুযোগ দেন। যারা থাকার সময় রেজিস্টারে কোনো এন্ট্রি করে না। ফলে ভাড়ার টাকার পুরোটাই চলে যায় কেয়ারটেকারের পকেটে। শুধু তা-ই নয়, সরকারি কর্মকর্তাকে ভিআইপি রুম না দিয়ে ওই রুম থেকে বেশি ভাড়া নিয়ে বেসরকারি কর্মকর্তাকে দেওয়ার ঘটনা প্রায়ই ঘটে। এতে সরকারি কাজে আসা কর্মকর্তারা প্রায়ই বাংলোতে থাকা নিয়ে বিপাকে পড়েন। এ ছাড়া জেলা পরিষদ থেকে বাংলোতে গেস্টদের জন্য সাবান, টিস্যু, মোমবাতি, তোয়ালে ইত্যাদি দেওয়ার ব্যবস্থা থাকলেও তা পাওয়া যায় না। অনেক বাংলোতে বাথরুম খুবই নোংরা থাকে এবং বাথরুমের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পাওয়া যায় না। শুধু তা-ই নয়, অনেক বাংলোতে কেয়ারটেকার তাঁর পুরো পরিবার নিয়ে থাকেন। ফলে একজন ভিআইপি কর্মকর্তার পক্ষে সেই পরিবেশ স্বস্তিদায়ক নয়। এ জন্য অনেক সরকারি কর্মকর্তা সরকারি ডাকবাংলোর প্রতি আস্থা হারিয়েছেন এবং নিরাপত্তার অভাবে তাঁরা সেখানে অবস্থান করেন না। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি লাভবান হচ্ছেন কেয়ারটেকার। কিন্তু রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করে ডাকবাংলোয় সরকারি কর্মকর্তাদের থাকার সুব্যবস্থা নিশ্চিত করতে অনুরোধ করছি।

নূরে আলম সিদ্দিকী নূর

দিনাজপুর।

 


মন্তব্য