kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

নতুন শিক্ষা আইন

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



দেশে নতুন শিক্ষানীতির পর এবার নতুন শিক্ষা আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। নতুন আইনে নোট, গাইড প্রকাশ বা পড়ানো ও প্রাইভেট-কোচিং বন্ধেরও পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এই আইন বাস্তবায়ন করা গেলে শিক্ষা ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসবে বলে আশা করা যায়। কিন্তু অভিজ্ঞতা থেকে বলা যায়, আইন থাকলেও আমাদের দেশে আইন প্রয়োগই হয় না। বর্তমানে স্কুল-কলেজের বেশির ভাগ শিক্ষক যেভাবে শিক্ষাকে ব্যবসায় পরিণত করেছেন এবং শিক্ষার্থীদের তাঁদের কাছে প্রাইভেট পড়তে নানাভাবে বাধ্য করছেন, তাকে প্রকাশ্য দুর্নীতি বলা যায়। যাঁরা সরকারি, বেসরকারি বা এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করছেন তাঁদের প্রাইভেট কোচিং অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। তবে  ঢালাওভাবে সব প্রাইভেট বন্ধ করা উচিত হবে না।

কারণ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক গরিব ও মেধাবী ছাত্রছাত্রী প্রাইভেট টিউশনি করে বা কোনো কোচিংয়ে পড়িয়ে নিজেদের পড়ার খরচ চালায়। অনেক অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রাইভেট পড়িয়ে কিছু বাড়তি আয় করেন আবার সেই সঙ্গে অবসর সময়ও কাটান। তাঁদের এই সৎ পথে আয়ের পথ যেন বন্ধ না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। সুতরাং সব দিক চিন্তা করেই শিক্ষা আইন তৈরি করতে হবে।

বিপ্লব, ফরিদপুর।


মন্তব্য