kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কোরবানির বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



মুসলিম উম্মাহর দুই বড় উৎসবের একটি ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ। ঈদুল আজহার উদ্দেশ্য পশু কোরবানির মাধ্যমে মানুষের মধ্যে থাকা পশুশক্তি, কাম, ক্রোধ, লোভ, মোহ বিসর্জন দেওয়া।

সারা দেশে এখন চলছে কোরবানির জোর প্রস্তুতি। কোরবানি করা পর্যন্ত প্রচুর বর্জ্য জমতে থাকে এ সময়। কোরবানির বর্জ্য দূষিত বলে তা থেকে ছড়ায় রোগবালাই। তাই একটু সময় দিয়ে ও কিছু নিয়ম মেনে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করলে এই দূষণ আমরা রোধ করতে পারি। জবাই করা পশুর রক্ত ও বর্জ্যে পরিবেশ যাতে দূষিত না হয় সেদিক সজাগ থাকতে হবে। কোরবানির পর বর্জ্য নিজ দায়িত্বে পরিষ্কার করে নির্দিষ্ট স্থানে ফেললে পরিবেশদূষণ রোধ করা সম্ভব। আর তা না করলে নিজেদেরই কষ্ট ভোগ করতে হবে। তাই বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সবার মধ্যে সচেতনতা বোধ তৈরি হতে হবে। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আরো বেশি উদ্যোগী হতে হবে।

মো. শাহিনুর ইসলাম

বিরল, দিনাজপুর।


মন্তব্য