kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গ্যাসলাইন বিস্ফোরণ

৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গ্যাসলাইন বিস্ফোরণে উত্তরায় একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যু অনেক কিছু নির্দেশ করে। ব্যস্ততার কারণে হয়তো এগুলো নিয়ে আমরা ভাবার সুযোগই পাচ্ছি না।

কিন্তু এমন বিপদে যে কেউ পড়তে পারে—এ কথা মনে রাখতেই হবে। সত্যি এখন সময় এসেছে গ্যাস, ইলেকট্রিক যন্ত্রাংশ, ইলেকট্রনিকস ডিভাইস ইত্যাদি নিয়ে ভাবার। যদি এসব বিষয়ের ব্যবস্থাপনা ঠিক না থাকে, তবে এমন ঘটনা যেকোনো সময়ই ঘটতে পারে। বড় বড় ফ্ল্যাটে এখন চারপাশ ছেয়ে গেছে। এগুলোতে নানা কারণে প্রায়ই শর্টসার্কিট, গ্যাসলাইনে অতিরিক্ত চাপের কারণে বিস্ফোরণ, ভূমিকম্পে ভবন হেলে পড়া ইত্যাদি ঘটনা ঘটছে। এমনটা হলে আমরা কাকে দোষ দেব? এ জন্য প্রত্যেকের দায়িত্ব হলো দেখেশুনে ও সব কনস্ট্রাকশন সম্পর্কে অবগত হয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া—সেটা কেউ নতুন বাড়ি করলে বা কেউ কোথাও ভাড়ার জন্য বাসা ঠিক করলে। অবশ্যই এটা ঠিক যে সরকারের দায়িত্ব অবকাঠামোগত বিষয়গুলোর সঠিক তদারকি নিশ্চিত করা। মান নিয়ন্ত্রণে ঘাপলা দেখলে সেটাকে অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা। কোনো দুর্ঘটনা ঘটলেই তাকে বাড়িওয়ালারা প্রাকৃতিক বলে চালিয়ে দিতে চেষ্টা করেন। এ জন্য আমাদের নিজেদের সচেতন হতে হবে। সব বিষয় নিজেরা বুঝে নিতে হবে। গ্যাসলাইন বিস্ফোরণে অনেকেই মারা গেছে। উত্তরায় এক পরিবারের তিনজন একসঙ্গে মারা গেছে। আমরা আসলে অভ্যস্ত হতে হতে নিজেরাই প্রতিনিয়ত নিজেদের বিপদের মুখে ঠেলে দিচ্ছি। ভাবুন, প্রত্যেকেই সচেতন হোন।

সাঈদ চৌধুরী, শ্রীপুর, গাজীপুর।


মন্তব্য