kalerkantho


বইমেলায় আসুন বই কিনুন

আনিসুর বুলবুল

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



বইমেলায় আসুন বই কিনুন

বইমেলায় গেলে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর কথা মনে পড়ে। যখন ভাবি এই বইটি কিনব, নাকি ওই বইটি কিনব তখন তাঁর বিখ্যাত একটি উক্তি মাথায় ঘোরে। ‘জীবনে তিনটি জিনিসের প্রয়োজন—বই, বই এবং বই।’ আসলেই তাই। মানুষের জীবনে বই খুবই প্রয়োজনীয়। বইমেলায় গেলে তালিকার বাইরেও কেনা হয়ে যায় হঠাৎ চোখে পড়া অন্য কোনো ভালো লাগা বই।

—বাবা, এবার আমাকে ইকরিমিকরিতে নিয়ে চলো।

প্রথম শ্রেণিতে পড়ুয়া আমার কন্যা লাবিবা বইমেলা থেকে কিনতে ১৩টি বইয়ের তালিকা করেছে। তার সংগ্রহে আগে থেকেই রয়েছে ইকরিমিকরির ২৩টি বই। ‘ঢাকার নদী’ বইটি পড়ে শোনানোর পর তার সে কী টেনশন! বুড়িগঙ্গা কেন দূষিত হচ্ছে! নদীটির এখন কী হবে? 

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রবেশের আগে টিএসসির মোড়েই পাওয়া গেল বইমেলার আমেজ। লাবিবা দ্রুত হাঁটছে। বুঝতে পারছি তার মধ্যে উত্তেজনা কাজ করছে। দ্বিতীয় গেট দিয়ে মেলায় প্রবেশের পরই তার চোখ যায় ডান পাশে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি কেন্দ্রগুলোয়। এক ভদ্রলোক বেডে শুয়ে রক্ত দিচ্ছেন।

—বাবা, উনার কী হয়েছে?

—উনি রক্ত দিচ্ছেন।

—কেন, বাবা?

—যারা স্বেচ্ছায় রক্ত দিতে চায় তারা এখানে এসে রক্ত দিতে পারে।

গম্ভীর স্বরে ‘ও’ উচ্চারণ করে আমার হাত ধরে সামনে এগোতে থাকে। আমরা সোজা ইকরিমিকরির দিকে এগোতে থাকি।

কিছুদূর এগোতেই চোখে পড়ল শিশু চত্বর।

—বাবা, টুকটুকি! বাবা, হালুম!

শিশু চত্বরে অন্য ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে খেলার জায়গায় চলে যায় লাবিবা। পাশে দাঁড়িয়ে থাকি আমি। সেখানে আমার মতো আরো অনেক অভিভাবক দাঁড়িয়ে। কিছুক্ষণ পর বের হয়ে এসে বলল,

—বাবা, পানি খাব।

আমি এদিক-সেদিক তাকিয়ে বলি,

—চলো, ওই পাশটায় বাংলা একাডেমির ক্যান্টিন আছে।

পাশ থেকে এক অভিভাবক বলে ওঠেন, ‘বাবুকে নিয়ে ওইখানে যান। ওইখানে পানির ফিল্টার রাখা আছে।’ তাঁর দেখানো দিকটায় তাকাতেই চোখে পড়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কন্ট্রোল রুম। এর পাশেই ছয়টি বিশুদ্ধ পানির ফিল্টার রাখা।

পানি পান শেষে ফোয়ারার দিকে এগোই। কন্যার চোখ যায় ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ স্টলে। ও আমাকে সেখানে নিয়ে যায়। স্টলে রাখা রোড সাইনগুলো দেখিয়ে বলে,

—বাবা, আমি এগুলো চিনি!

—কিভাবে চেনো?

—রাস্তায় দেখেছি।

এটি একটি ভালো উদ্যোগ। বইমেলায় এসে মানুষ রোড সাইনগুলো চিনতে পারছে।

—বাবা, এখন ইকরিমিকরিতে চলো।

ইকরিমিকরির স্টলের সামনে অভিভাবক আর তাঁদের বাচ্চাদের ভিড়। ভিড় ঠেলেই ঢুকে পড়ে লাবিবা। ‘ফাঙসাং’, ‘বইকাটা’, ‘অনেক দিন আগে হুক্কা টানতো বাঘে’—এক এক করে ২৬টি বই নেয়। প্রতিটি দুটি করে।

—দুটি করে কেন নিচ্ছ?

—হাবিবাকে দেব।

হাবিবা ওর খালাতো বোন। না করি না। না করব কেন? বই বদ্ধ হৃদয়কে উন্মুক্ত করে। জানা-অজানা, চেনা-অচেনা, মরু-গিরি অনেক পথে নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। আপনারাও শিশুসন্তানকে নিয়ে বইমেলায় আসুন, বই কিনুন, বই উপহার দন।

 

 



মন্তব্য