kalerkantho


বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোকে জানাতে হবে ৫১টি তথ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোকে জানাতে হবে ৫১টি তথ্য

বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনা নীতিমালা ২০১১ (সংশোধিত) এবং বিএমডিসি স্বীকৃত বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোর ৫১টি তথ্য চেয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে এসব তথ্য পাঠানোর জন্য বেসরকারি সব মেডিক্যাল কলেজ অধ্যক্ষদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরপর কলেজ থেকে পাওয়া ওই সব তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষ কমিটি সরেজমিনে যাচাই করবে। গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে এসংক্রান্ত একটি আদেশ দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, অনিয়ম-দুর্নীতিতে ভরা দেশের অনেক বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ সরকারের এসব শর্তে ফেঁসে যেতে পারে। সরকার বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোয় শৃঙ্খলা ফেরানার জন্য বড় ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। চিঠিতে যে ৫১টি শর্তের বিষয়ে মন্ত্রণালয় তথ্য জানতে চেয়েছে এর মধ্যে দেশের বেশির ভাগ বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ ওই শর্তগুলো যথাযথভাবে মানেনি।

জানা যায়, অনেক কলেজের নামে নিজস্ব জমি নেই, নিয়মিত অডিট করা হয় না, সরকারের নিয়ম না মেনে নিজেদের ইচ্ছামাফিক পরিচালনা, আর্থিক দুর্নীতি, বিএমডিসি নিয়ম মেনে শিক্ষক নিয়োগ না দেওয়াসহ বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতিতে ডুবে আছে দেশের অনেক বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ। সেখানে প্রতিবছর শিক্ষার্থী ভর্তি করা হলেও রোগীর সংখ্যা খুব কম। প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা না থাকায় সেখানে রোগীরা যেতে চায় না। অথচ ভর্তি নিয়ে জমজমাট ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ রয়েছে বিভিন্ন কলেজের বিরুদ্ধে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে চট্টগ্রামের বেসরকারি বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজে পরিদর্শন ও শিক্ষার্থী পড়াতে যাওয়া কয়েকজন শিক্ষক বলেন, সরকারের এই পদক্ষেপ যুগান্তকারী। আগে বিক্ষিপ্তভাবে দুয়েকটি কলেজে স্থায়ী জমি, ভর্তিসহ বিভিন্ন অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা নিয়ে বেসরকারি কলেজে তদন্ত হলেও এ রকম বড় পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। চট্টগ্রামে বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোর মধ্যে কয়েকটির নিজস্ব জমি নেই। একই ক্যাম্পাসে একাধিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যা থাকতে পারে না। গভর্নিং বডিতে (পরিচালনা কমিটি) থাকলেও আর্থিক বিষয়টি অন্যরা নিয়ন্ত্রণ করে। প্রায় বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের অডিট হয় না। মানসম্মত শিক্ষক-চিকিৎসক নেই। বিএমডিসির আদেশ-নির্দেশও মানা হয় না।

তাঁরা আরো বলেন, শুধু চট্টগ্রাম নয়, দেশে অনেক বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভূরি ভূরি অনিয়ম আছে। প্রথমবারের মতো সরকার যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে করে অনেক বড় অনিয়ম-দুর্নীতি বেরিয়ে আসবে। বিভিন্ন কলেজ এবার ফেঁসে যাবে। সরকার মনে হয় এবার হার্ডলাইনে গেছে, দ্রুত সময়ের মধ্যে কলেজের কাজ থেকে সুনির্দিষ্ট পয়েন্টে তথ্য চাওয়া হয়েছে। কেউ মিথ্যা তথ্য দিলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সরেজমিন তদন্তে প্রকৃত তথ্য বেরিয়ে আসবে।



মন্তব্য