kalerkantho


ওবায়দুল কাদের বললেন

বিএনপি সরে গেলেও নির্বাচন আটকে থাকবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপি সরে গেলেও নির্বাচন আটকে থাকবে না

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘নির্বাচন হবে কি না—এ নিয়ে কারো সন্দেহ নেই। কোনো মিডিয়াতে এ ধরনের সংশয় নিয়ে খবর প্রকাশ হয়নি। ইনশাআল্লাহ নির্বাচন হবে। তারা সরে গেলেও হবে। নির্বাচন কারো জন্য আটকে থাকবে না। কেউ যদি সরেও যায়, নির্বাচন সরবে না। নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে।’ তিনি গতকাল সকালে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

নির্বাচন কমিশন সরকারের নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের এমন অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারা নির্বাচন বানচালের নীলনকশা লন্ডন থেকে করছে। আমাদের কোনো নীলনকশা নেই। আমাদের নীলনকশা অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচনের।’

বিএনপির আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘১০ বছরে নামল না, ১০ তারিখের পর আন্দোলন করবে। মনে হয় হেরে গিয়ে আন্দোলন করবে, এই তো? দেখি না আন্দোলন করতে কে আসে। মানুষ না থাকলে তো আন্দোলন হয় না। মানুষের সাড়া নেই বলে এই ১০ বছরে তারা কোনো আন্দোলন করতে পারেনি।

নির্বাচনের সুস্থ পরিবেশ নেই—বিএনপির এমন অভিযোগের জবাবে কাদের বলেন, ‘অসুস্থ পরিবেশ কোথায় সৃষ্টি হয়েছে এই নগরীতে? এই মুহূর্তে এই ঢাকা শহরে কোথায় পরিবেশ অসুস্থ? যেটুকু অসুস্থ হয়েছে সেটা পল্টনে, তারা করেছে। আমি নিশ্চিত করে বলছি, আমাদের তরফ থেকে নির্বাচনের পরিবেশ বিঘ্নিত হবে না। আমরা কোনো বিশৃঙ্খলা করব না। এ ব্যাপারে আমাদের নেত্রী নেতাকর্মীদের সতর্ক করে দিয়েছেন। কিন্তু তারা যদি বিশৃঙ্খলা-নাশকতা করতে চায়, তাহলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমাদের প্রতিরোধ করতে হবে। এবার বিজয়ের উৎসবের মতো ভোট হবে, এ জন্য তাদের মনটা একটু খারাপ।’

নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘৯ তারিখ মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। এরপর সঙ্গে সঙ্গে বহিষ্কার করা হবে।’ নির্বাচন কমিশনে বিএনপির লোকও আছে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘নির্বাচন কমিশনে বিএনপির লোকও আছে, আওয়ামী লীগের লোকও আছে। বিভিন্ন দল থেকে সার্চ কমিটির মাধ্যমে এই নির্বাচন কমিশন গঠিত হয়েছে।’ তিনি গতকাল সকালে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর কবরে শ্রদ্ধা জানানোর পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বেছে বেছে বিএনপির জনপ্রিয় প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিলের ব্যাপারে তথ্য-প্রমাণ দিয়ে তাদের এটা বলতে হবে। অন্ধকারে ঢিল মারলে হবে না। নির্বাচন কমিশনে বিএনপির একজন কমিশনার আছেন। আমাদেরও তো একজন।’

কাদের বলেন, ‘এখন যাঁরা নির্বাচন কমিশন পুনরায় গঠনের কথা বলেন, তাঁরা নির্বাচন বানচাল করতে চান। কারণ, এখন কমিশন পুনরায় গঠনের কোনো বাস্তবসম্মত অবস্থা নেই।’

এক প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ‘এত মনোনয়ন দেওয়া বিএনপির সাংগঠনিক দেউলিয়াত্বের পরিচয়। সংগঠনে কোনো শৃঙ্খলা নেই। শৃঙ্খলা থাকলে এভাবে মনোনয়ন বাণিজ্য হয় নাকি? বিতর্কিত প্রার্থীদের মনোনয়ন দেওয়ার অর্থ হচ্ছে টাকা-পয়সার জোগানটা বেশি দেওয়া। বিতর্কিত হলেই তো টাকা-পয়সা বেশি দেবে।’

 



মন্তব্য