kalerkantho


পাবনা

আমাদের সব প্রস্তুতিই আছে

অ্যাডভোকেট মাসুদ খোন্দকার
সহসভাপতি, জেলা বিএনপি

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



আমাদের সব প্রস্তুতিই আছে

কালের কণ্ঠ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে কী ভাবছেন?

অ্যাডভোকেট মাসুদ খোন্দকার : আমাদের প্রধান দাবি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি। এরপর অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করা হলে বিএনপি অবশ্যই নির্বাচনে যাবে।

কালের কণ্ঠ : যদি বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয় সে ক্ষেত্রে আপনাদের প্রস্তুতি কেমন?

অ্যাড. মাসুদ খোন্দকার : বিএনপি একটি গণমুখী রাজনৈতিক দল। গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে বিশ্বাসী বলেই সব সময় আমরা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। পাবনা জেলাতেও তাই।

কালের কণ্ঠ : বর্তমানে আপনাদের সাংগঠনিক অবস্থা কেমন?

অ্যাড. মাসুদ খোন্দকার : বর্তমানে পাবনা জেলায় বিএনপির সাংগঠনিক ভিত্তি অনেক মজবুত। জেলার প্রতিটি উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন, ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত বিএনপির কমিটি রয়েছে। প্রতিটি ইউনিট সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে প্রতিনিয়ত সাধারণ মানুষের সঙ্গে দলের সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি করছে।

কালের কণ্ঠ : জেলার বিভিন্ন স্থানে দলীয় কোন্দলের অভিযোগ রয়েছে। বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন?

অ্যাড. মাসুদ খোন্দকার : আমি এটাকে কোন্দল মনে করি না। দেশের মানুষের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় এই দলে নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকতেই পারে। কিন্তু কেন্দ্রীয় যেকোনো সিদ্ধান্ত আমরা সম্মিলিতভাবে পালন করছি। নির্বাচনের ক্ষেত্রে এর কোনো ব্যতিক্রম ঘটবে না।

কালের কণ্ঠ : জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশ নিলে পাবনার কয়টি আসন শরিক দলগুলোকে ছেড়ে দিতে হতে পারে?

অ্যাড. মাসুদ খোন্দকার : এ বিষয়টি পুরোপুরি কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে। কেন্দ্র থেকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আর কেন্দ্রের সিদ্ধান্তই আমাদের সিদ্ধান্ত।

কালের কণ্ঠ : বর্তমান নির্বাচন কমিশনের ওপর আপনারা কতখানি আস্থাশীল?

অ্যাড. মাসুদ খোন্দকার : বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে সিটি করপোরেশনসহ যত নির্বাচন হয়েছে তা হয়েছে নির্বাচনের নামে প্রহসন। আমরা মনে করি সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে দলনিরপেক্ষ ব্যক্তির সমন্বয়ে নতুন করে নির্বাচন কমিশন ঢেলে সাজানো জরুরি।



মন্তব্য