kalerkantho


পুলিশি বাধায় পণ্ড বাম জোটের ইসি ঘেরাও

কাল সারা দেশে বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



পুলিশি বাধায় পণ্ড বাম জোটের ইসি ঘেরাও

নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোট গতকাল মিছিল বের করে। মিছিলটি নির্বাচন কমিশন কার্যালয় ঘেরাও করতে যাওয়ার সময় কারওয়ান বাজার মোড়ে পৌঁছলে পুলিশ লাঠিপেটা করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

পুলিশি বাধায় নির্বাচন কমিশন ভবন ঘেরাও কর্মসূচি পালনে বাম গণতান্ত্রিক জোটের মিছিল রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন ভবন পর্যন্ত পৌঁছতে পারেনি। গতকাল বৃহস্পতিবার মিছিলটি কারওয়ান বাজারের কাছে কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউয়ের সার্ক ফোয়ারা এলাকায় পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। এর আগে মিছিলটি প্রেস ক্লাব থেকে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সামনে এলে সেখানে পুলিশ তাদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে। সে বাধা অতিক্রম করে সার্ক ফোয়ারা মোড় পর্যন্ত এলে সেখানে পুলিশ ব্যারিকেড সৃষ্টি করে। এর পরও জোটের মিছিল এগোনোর চেষ্টা করলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশের লাঠিপেটায় আহত হয় জোটের নেতাকর্মীরা। নির্বাচন কমিশন ভবনের দিকে এগোতে না পেরে সার্ক ফোয়ারা মোড়ের ওপর বিক্ষোভ প্রদর্শন করে তারা। এ সময় বক্তব্য দেন গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি এবং সিপিবির সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স। জোটের দাবি পুলিশি হামলায় তাঁদের অর্ধশত নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবিতে ‘নির্বাচন কমিশন ঘেরাও’ কর্মসূচি দেয় এই জোট। গতকালের পুলিশি হামলার প্রতিবাদে আগামী কাল শনিবার দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে জোট।

ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও অঞ্চলের সহকারী কমিশনার সাত্যকি কবিরাজ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের কাছে খবর ছিল, এ মিছিল থেকে নাশকতার আশঙ্কা রয়েছে। নিরাপত্তার জন্য তাদের এগোতে দেওয়া হয়নি। পুলিশ শান্তিপূর্ণভাবে তাদের থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু মিছিল থেকে পুলিশের ওপর চড়াও হয়।’ তিনি জানান, এ ঘটনায় কাউকে আটক করা হয়নি।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতাদের অভিযোগ, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে নির্বাচন কমিশন ঘেরাও পূর্ব সমাবেশ শেষে ঘেরাও মিছিল মৎস্য ভবন, শাহবাগ হয়ে কারওয়ান বাজার সার্ক ফোয়ারার সামনে পৌঁছলে পুলিশ অতর্কিত হামলা চালায়। এতে জোটের সমন্বয়ক সাইফুল হক, সিপিবির সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, বাসদ কেন্দ্রীয় নেতা রাজেকুজ্জামান রতন, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন মুন্নসহ আহত হয় অর্ধশত নেতাকর্মী। আহতদের মধ্যে সিপিবি নেতা সাজ্জাদ জহির চন্দন, রুহিন হোসেন প্রিন্স, জলি তালুকদার, ডা. সাজেদুল হক রুবেল, লুনা নূর, নিমাই গাঙ্গুলি ও মঞ্জুর মঈনও রয়েছেন।

সিপিবি নেতা রুহিন হোসেন সাংবাদিকদের জানান, আহতদের মধ্যে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি জিলানী শুভসহ প্রায় ১৫ জন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ছাড়াও কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অনুযায়ী জেলা নির্বাচন কার্যালয় অভিমুখে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে যাওয়ার সময় সাতক্ষীরায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের জেলা নেতা বাসদ সমন্বয়ক নিত্যানন্দ সরকার, বাসদ (মার্কসবাদী) নেতা খগেন্দ্রনাথ ও প্রশান্ত রায়কে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের নির্বাচন কমিশন ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশি হামলার নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম গতকাল এক যৌথ বিবৃতিতে এই নিন্দা জানান।

জানা যায়, মিছিল নিয়ে নির্বাচন ভবন অভিমুখে যাত্রা শুরুর আগে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক সাইফুল হক। বক্তব্য দেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাসদ কেন্দ্রীয় নেতা রাজেকুজ্জামান রতন বাসদ (মার্কসবাদী) নেতাসহ সংশ্লিষ্ট দলগুলোর নেতারা। সমাবেশে নেতারা বলেন, সরকার ও নির্বাচন কমিশন ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো একতরফা নির্বাচনের পাঁয়তারা করছে। তা বাস্তবায়ন করতে দেওয়া হবে না। আওয়ামী লীগের অধীনে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের কোনো সুযোগ নেই। নির্বাচনের আগে পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তদারকি সরকার গঠন করতে হবে। নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে।



মন্তব্য