kalerkantho


পাকিস্তানের রাজনীতি

নওয়াজ, মরিয়ম জামিনে মুক্ত

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



নওয়াজ, মরিয়ম জামিনে মুক্ত

ইসলামাবাদ হাইকোর্টের রায়ে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ, তাঁর মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ ও জামাতা ক্যাপ্টেন (অবসরপ্রাপ্ত) মুহাম্মদ সফদর গতকাল বুধবার জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গতকাল বুধবার আদিয়ালা কারাগার থেকে মুক্ত এ তিনজনকে স্বাগত জানান পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) নেতারা। কারাগারের বাইরে ছিল সমর্থকদের ভিড়।

নওয়াজ, মরিয়ম ও সফদর অ্যাভেনফিল্ড দুর্নীতি মামলার রায় চ্যালেঞ্জ করে ইসলামাবাদ হাইকোর্টে যে আবেদন করেন, তার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত গতকাল ওই তিনজনকে জামিনে মুক্তি দেওয়ার আদেশ দেন। তাঁদের প্রত্যেককে পাঁচ লাখ রুপির বিনিময়ে জামিন দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

লন্ডনের বিলাসবহুল এলাকা পার্ক লেনে ফ্ল্যাটের মালিকানা বিষয়ক দুর্নীতির দায়ে গত ৬ জুলাই পিএমএল-এন নেতা নওয়াজ, তাঁর মেয়ে মরিয়ম ও জামাতা সফদরকে যথাক্রমে ১০, সাত ও এক বছরের কারাদণ্ড দেন পাকিস্তানের জবাবদিহিতা ব্যুরো (এনএবি) আদালত। এ রায়ের ভিত্তিতে সাজা ভোগ করতে থাকা এ তিন ব্যক্তির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ইসলামাবাদ হাইকোর্ট গতকাল রায়টি স্থগিত করেন। সেই সঙ্গে প্রত্যেককে পাঁচ লাখ রুপির বিনিময়ে জামিন দেওয়ার আদেশ দেন। এনএবির আদালতের রায় চ্যালেঞ্জ করে তাঁরা যে আবেদন করেন, তার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জামিনের আদেশ বহাল থাকবে বলে উল্লেখ করেন বিচারক। ইসলামাবাদ হাইকোর্টের দুই সদস্যবিশিষ্ট বেঞ্চ গতকাল এসব আদেশ দেন।

ইসলামাবাদ হাইকোর্টের এ রায় ঘোষণার সময় আদালতে নওয়াজের ছোট ভাই পিএমএল-এন প্রধান শাহবাজ শরিফ, অপর দুই পিএমএল-এন নেতা পারভেজ রশিদ ও খুররম দস্তগির উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে তাঁরা হর্ষধ্বনি দেন। এ ছাড়া রায় ঘোষণার পর সিনেটর চৌধুরী তানভির ডেপুটি রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে গিয়ে নওয়াজ, মরিয়ম ও সফদরের জামিনের অর্থ পরিশোধ করেন।

নওয়াজসহ তিনজনের জামিনের আদেশের কপি পাঞ্জাবের আদিয়ালা কারাগারে পৌঁছে যাওয়ায় গতকালই তাঁদের মুক্তি দেওয়া হয়। সেখান থেকে তাঁদের বিশেষ ফ্লাইটে করে লাহোরে নেওয়ার কথা। কারামুক্তির পর এ তিনজনকে বরণ করে নেন শাহবাজসহ অন্য পিএমএল-এন নেতারা। কারাগারের বাইরে জড়ো হওয়া সমর্থকরা এ সময় উল্লাস করে। নওয়াজ মেয়ে-জামাতাকে নিয়ে গাড়িতে করে চলে যাওয়ার সময় ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে তাঁদের বরণ করে নেয় সমর্থকরা।

নওয়াজসহ তিনজনের জামিনে মুক্তির রায়ের পর এক টুইটে শাহবাজ লেখেন, ‘সত্য সামনে এসেছে, মিথ্যা অন্তর্হিত হয়েছে।’ আরেক পিএমএলএন নেতা খাজা আসিফ ওই রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘সত্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।’ নওয়াজের বিরুদ্ধে অন্যান্য মামলায়ও ‘সত্য উন্মোচিত হবে’ বলে তিনি আশা করছেন।

ইসলামাবাদ হাইকোর্টের রায়ের আগের দিন মঙ্গলবার দিনভর নিজের যুক্তি আদালতে তুলে ধরেন এনএবির কৌঁসুলি আকরাম কোরেশি। মঙ্গলবার শুনানির সময় আদালত তাঁকে নির্দেশ দেন, তিনি যেন আধাঘণ্টার মধ্যে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন। আদালত এটাও বলেন, কোরেশির যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হোক বা না হোক, বুধবার (গতকাল) রায় ঘোষণা করা হবে। আদালতের এ নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল দিনের শুরুতেই নিজের বক্তব্যের সমাপ্তি টানেন এনএবি আইনজীবী কোরেশি। তাঁর বক্তব্য শেষ হওয়ার পর নওয়াজের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন খাজা হারিস। তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য উপস্থাপন শেষে আদালত নওয়াজ ও তাঁর মেয়ে-জামাতার জামিনের রায় দেন।

পাকিস্তানের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ কথিত পানামা পেপারস ফাঁসের জেরে প্রথমে প্রধানমন্ত্রিত্ব ও দলীয় প্রধানের পদ খোয়ান। এরপর আদালতের আদেশে তিনি পাকিস্তানের রাজনীতিতে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ হন। দুর্নীতির অভিযোগে রাজনৈতিক জীবনের এমন অবসানের পর কারাভোগও করতে হয় তাঁকে। এনএবির করা দুর্নীতি মামলায় গত জুলাইয়ে তাঁর ১০ বছরের জেল হয়। সেই সঙ্গে সাজা পান তাঁর মেয়ে মরিয়ম ও জামাতা সফদর। নওয়াজের বিরুদ্ধে আরো কয়েকটি মামলা চলছে।

নওয়াজ পরিবার ও পিএমএল-এন নেতাদের অভিযোগ, পাকিস্তানের রাজনীতি থেকে নওয়াজ ও মরিয়মকে সরাতে এবং পাকিস্তান তেহরিক ই ইনসাফ (পিটিআই) নেতা ইমরান খানকে ক্ষমতায় বসাতে সেনাবাহিনী ও বিচার বিভাগের আঁতাতে এসব দুর্নীতি মামলা সাজানো হয়েছে। এ অভিযোগ নিয়ে বিতর্কের মধ্যে ২৬ জুলাই পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় ইমরানের পিটিআই। অন্যান্য সমর্থক দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের নিয়ে জোট সরকার গঠন করে ইমরান এখন সেই সরকারের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। নির্বাচনের প্রায় দুই মাসের মাথায় জামিন পেলেন নওয়াজ, তাঁর মেয়ে ও জামাতা। সূত্র : ডন, জিয়ো নিউজ।



মন্তব্য