kalerkantho


আজ জিতলেই সার্বিয়া নকআউট পর্বে

২২ জুন, ২০১৮ ০০:০০



আজ জিতলেই সার্বিয়া নকআউট পর্বে

ব্রাজিলের গ্রুপে থেকে সবার আগে নক আউটে যাওয়ার সুযোগ কিনা সার্বিয়ার! আজ সুইজারল্যান্ডকে হারালেই পূরণ হবে স্বপ্নটা। তবে হারলে বা ড্র করলে শঙ্কা থাকবে ছিটকে যাওয়ারও। মেলাতে হবে নানা অঙ্ক। তাই হাতের মুঠোয় আসা সুযোগ হাতছাড়া করতে চায় না তারা। অল ইউরোপিয়ান লড়াই জিতে নক আউটে নাম লেখানোর প্রত্যয় দলের অন্যতম সেরা তারকা আলেকজান্দার কোলারভের। কোস্টারিকার বিপক্ষে ফ্রিকিক থেকে করা তাঁর গোলেই জিতেছিল সার্বিয়া। আজও দলের জয়ে অবদান রাখতে চান এএস রোমার এই তারকা, ‘৩টি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট পেয়েছি। তাই বলে পরের রাউন্ডে চলে যাইনি। সুইজারল্যান্ডের ম্যাচটিই হবে সবচেয়ে কঠিন।’

ব্রাজিলের বিপক্ষে সুইসরা যে মানসিকতায় খেলেছে তা খুব বেশি ভুল বলছেন না কোলারভ। ব্রাজিলের সেরা তারকা নেইমারকে আটকাতে করেছে ১০টি ফাউল! সার্বিয়াকেও আজ ছেড়ে কথা বলবে না সুইজারল্যান্ড। বিশেষ করে মুখোমুখি দেখায় যখন এগিয়ে সার্বিয়াই। দুই দলের ১৩ ম্যাচে সার্বিয়ার জয় ছয়টিতে, সুইজারল্যান্ডের দুটিতে। বিশ্বকাপে একমাত্র দেখাতেও সার্বিয়ার জয় ৩-০ গোলে। তবে স্বাধীন হওয়ার পর আজই প্রথম দেখা দুই দলের। সেটা জয় দিয়ে উদ্যাপন করতে চান সুইস কোচ ভ্লাদিমির পেতকোভিচ, ‘এখন থেকে সব দল গুরুত্ব দিয়ে খেলবে আমাদের সঙ্গে। বিশ্বকাপে একটা সংখ্যা হতে আসিনি। ব্রাজিলের সঙ্গে যেভাবে খেলেছি তাতে গর্বিত আমি। এবার সামনে সার্বিয়া। খেলতে চাই একই মানসিকতা নিয়ে।’

ভ্লাদিমির পেতকোভিচের জন্ম যুগোস্লাভিয়ায়, সেই দেশ ভেঙেই আজকের সার্বিয়া। সুইজারল্যান্ডের তিন তারকা ফুটবলার ভ্যালোঁ বেহরামি, গ্রানিত জাকা আর জেরদান শাকিরির জন্ম আবার কসভোয়। কয়েক বছর আগে কসভো স্বাধীনতা ঘোষণা করেছে সার্বিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে। আজকের ম্যাচে রাজনীতি আর অন্য রকম আবেগও থাকবে তাই। তবে অধিনায়ক স্টিফেন লিচেনস্টাইনার এসব নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে মনোযোগ রাখতে চাইছেন ম্যাচে, ‘আমরা ছন্দে আছি। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের পর হারিনি আর। জানি সার্বিয়া ভালো দল। আমরা ওদের নিয়ে না ভেবে এত দিন যেভাবে খেলে এসেছি সেভাবেই খেলতে চাই।’

স্লাভোলজুব মুসলিনের হাত ধরে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে এসেছিল সার্বিয়া। সেই কোচই চাকরি হারিয়েছেন সের্গেই-মিলিনকোভিচ সাভিচকে না খেলিয়ে। নতুন কোচ ম্লাদেন ক্রাস্টিচ একই ভুল করেননি। ৪৪ বছর বয়সী এই কোচ যুগোস্লাভিয়ার হয়ে খেলেছেন ৫৯ ম্যাচ। ২০০১ সালে তাঁর প্রথম গোলটি সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে। ম্যাচটি যুগোস্লাভিয়া জিতেছিল ২-১ গোলে। সেই স্মৃতি নিশ্চয়ই উদ্দীপ্ত করবে ক্রাস্টিচকে। তিনি আছেন অবশ্য বর্তমান নিয়েই, ‘আমরা অঙ্ক কষে খেলব না। কী হলে কী হতে পারে সেই অপেক্ষাতেও থাকব না। লক্ষ্য একটাই, জিততে হবে।’ কাঙ্ক্ষিত সেই জয় পেলেই শেষ ষোলোর পৃথিবীতে চলে যাবে সার্বিয়া। এএফপি

 



মন্তব্য