kalerkantho


দুই মহাসড়কের মহাজটে ঢাকার প্রবেশপথ রুদ্ধ

আট লেনও স্থির

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ মে, ২০১৮ ০০:০০



দুই মহাসড়কের মহাজটে ঢাকার প্রবেশপথ রুদ্ধ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানজট লেগেই আছে। তার ওপর গতকাল কাঁচপুর এলাকায় ট্রাক উল্টে গেলে সেই যানজট আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করে। ছবি : তারেক আজিজ নিশক

মো. ফারুক হোসেন প্রতিদিন ভোরে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে সানারপাড়ে গিয়ে ডিম বিক্রি করেন। গতকাল সকাল ৭টার মধ্যে যাওয়ার কথা থাকলেও দুপুর ১২টায়ও না যাওয়ায় সানারপাড়ের বাসিন্দা মোজাম্মেল হক মোবাইল ফোনে ডিম বিক্রেতা ফারুকের খোঁজ নেন। ফারুক তখন জানান যে ভোর ৪টায় যাত্রাবাড়ী থেকে রওনা দিয়ে রায়েরবাগেই তিন ঘণ্টা আটকে ছিলেন এবং রায়েরবাগ থেকে সানারপাড় তিন কিলোমিটার যেতে লেগেছে আরো প্রায় পাঁচ ঘণ্টা।

যাত্রাবাড়ী থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত দেশের সবচেয়ে বড় প্রশস্ত সড়ক আছে, সেটি আট লেনের। এত প্রশস্ত সড়ক থাকার পরও যাত্রাবাড়ী-কাঁচপুরসহ আশপাশের মূল সড়ক ও বিভিন্ন  অলিগলি গতকাল সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত যেন ছিল স্থির, অচল। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের যানজট এসে ঢাকার অন্যতম প্রধান প্রবেশপথও বন্ধ করেছিল। আর তাতে অবরুদ্ধ ছিল ঢাকা থেকে বের হওয়ার পথও।

যাত্রাবাড়ী, শনিরআখড়া, রায়েরবাগ, কাঁচপুর, মদনপুর, সোনারগাঁ হয়ে যানজটের স্রোত আরো দূরে ছড়িয়েছিল। অন্যদিকে কাঁচপুর থেকে যানজটের আরো একটি বড় স্রোত ঠেকেছিল নারায়ণগঞ্জের গাউছিয়া পর্যন্ত।

মেঘনা ও গোমতী সেতুর টোল প্লাজায় ধীরগতি, কাঁচপুরে সেতুর নির্মাণকাজ, মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে রাস্তা সংস্কার, বাস বে না থাকায় যেখানে-সেখানে গাড়ি রাখা, ভুলতায় ফ্লাইওভার নির্মাণকাজের জন্য গাউছিয়া ও বিভিন্ন স্থানে গাড়ির জট ছিল। এতে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক হয়ে ঢাকায় ঢোকার পথে যাত্রীদের ভোগান্তির শেষ ছিল না।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সকাল ৮টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাঁচপুর অংশে দাঁড়িয়েছিল শত শত যাত্রী। ঠাঁয় দাঁড়িয়েছিল মালবাহী গাড়িগুলোও। সকাল ১০টায় মদনপুর বাসস্ট্যান্ডে মহাসড়কের এক পাশ বন্ধ করে সংস্কারের কাজ করা হচ্ছিল সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের উদ্যোগে। এ কারণে এক পাশ দিয়ে গাড়িগুলোকে চলতে হয়েছে ধীরে।

আমাদের সোনারগাঁ প্রতিনিধি জানান, দুপুর ১২টায় মোগরাপাড়া চৌরাস্তা বাসস্ট্যান্ডে যাত্রী ও মালবাহী গাড়িগুলোকে মহাসড়কের ওপর এলোপাতাড়িভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। বিকেল ৫টায় মেঘনা সেতুর টোল প্লাজায় ছিল গাড়ির জট। টোল আদায়ে ছিল ধীরগতি। গজারিয়ায় দুটি মালবাহী ট্রাক বিকল হওয়ায় যানজট তীব্র হয়েছে বলে জানা গেছে। সন্ধ্যা ৬টায়ও মহাসড়কে গাড়ির প্রচণ্ড চাপ ছিল।

ঢাকা থেকে কুমিল্লাগামী তিশা পরিবহনের যাত্রী কামাল হোসেন ও ফরিদ মিয়া জানান, কাঁচপুর সেতু থেকে মেঘনা সেতু পার হতেই তাঁদের পাঁচ ঘণ্টা লেগেছে।

শ্যামলী পরিবহনের যাত্রী আয়েশা আক্তার বলেন, ‘আমরা বাস ছেড়ে বাধ্য হয়ে হেঁটে যাচ্ছি। অন্য বাস ধরব।’

হাইওয়ে পুলিশের কাঁচপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আলী রেজা জানান, রাস্তা সংস্কার, অতিরিক্ত গাড়ির চাপ ও গজারিয়া এলাকায় দুটি মালবাহী গাড়ি বিকল হওয়ার কারণেই তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি জানান, গতকাল সকালে বাউশিয়ায় পণ্যবাহী ট্রাক উল্টে তিন ঘণ্টা যানবাহন বন্ধ থাকে। চান্দিনা উপজেলার মাধাইয়া থেকে গোমতী সেতু পার হয়ে মেঘনা সেতুর পর নারায়ণগঞ্জে মদনপুর পর্যন্ত মহাসড়কে যানজট ছিল। ভোরে গোমতী সেতুর পশ্চিম পারে পণ্যবাহী মালবোঝাই ট্রাক উল্টে যায়। তাতে তিন ঘণ্টা যানবাহন বন্ধ থাকে।


মন্তব্য