kalerkantho


রাজবাড়ীতে আলাদা ঘটনায় তিন ছাত্রীকে যৌন হয়রানি

মাদারীপুরে প্রতিবাদ করায় দুজনকে কুপিয়ে জখম

রাজবাড়ী ও মাদারীপুর প্রতিনিধি   

১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



রাজবাড়ীতে আলাদা ঘটনায় তিন ছাত্রীকে যৌন হয়রানি

রাজবাড়ীতে পৃথক ঘটনায় তিন ছাত্রীর যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল সোমবার সকালে একটি ঘটনায় রাজবাড়ী থানায় মামলা দায়েরের পরপরই পুলিশ অভিযুক্ত যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। অন্য দুই ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এদিকে মাদারীপুর শহরে বৈশাখী মেলা প্রাঙ্গণে ভাগ্নিকে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় মামা হামিম খান (২৯) ও শাহিন সরদার (২৬) নামে দুজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেছে এক দল বখাটে। এ ব্যাপারে গতকাল মাদারীপুর সদর থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। 

রাজবাড়ীর অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী (১৯) যৌন হয়রানির অভিযোগে জানান, তাঁর সঙ্গে রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের পশ্চিম ভবদিয়া গ্রামের ইসলাম ফকিরের ছেলে বজলুর রহমান বিজয়ের (২৬) সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। পহেলা বৈশাখের বিকেলে বিজয় তাঁর বাড়ির কাছে একটি মোড়ে এসে তাঁকে মোবাইলে ফোন করে ঘুরতে যাওয়ার প্রস্তাব দেয়। তিনি দেখা করলে বিজয় তাঁকে বাধ্য করে তার সঙ্গে রিকশায় উঠতে। রিকশাটি কিছুটা নির্জন রাস্তায় পৌঁছতেই বিজয় তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে শরীরে হাত দিতে শুরু করে। একপর্যায়ে তিনি চিৎকার করেন। এতে স্থানীয়রা এগিয়ে আসে। অবস্থা বেগতিক দেখে বিজয় দৌড়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর পুলিশ বিজয়কে গ্রেপ্তার করে। 

অন্য ঘটনায় পহেলা বৈশাখে স্কুলের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য সকালে নিজ ঘরে স্কুল ড্রেস পরছিল সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রী (১৪)। তখন রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর ইউনিয়নের রায়নগর গ্রামের রাজমিস্ত্রি ফারুক খান (৩৮) তার ঘরে প্রবেশ করে। ফারুক ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। মেয়েটির চিৎকারে পরিবারের সদস্যরাসহ স্থানীয়রা এগিয়ে এলে সে পালিয়ে যায়। ফারুক গ্রামের প্রভাবশালী আব্দুল সামাদ খানের ছেলে।

রাজবাড়ী জেলা শহরের শেরেবাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, তাঁদের বিদ্যালয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে পহেলা বৈশাখ উদ্যাপন করা হয়। পরদিন রবিবার স্কুল বন্ধ ছিল। গতকাল সোমবার সকালে ওই ছাত্রী বিদ্যালয়ে এসে ঘটনা জানিয়ে বলে, ‘স্যার, আমাকে বাঁচান। আমি ওই নরপশুর বিচার চাই।’ তিনি জানান, তাঁরা তাত্ক্ষণিক ওই ছাত্রীসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে সদর থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। শেরেবাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ডা. রহিম মোল্লা বলেন, তাঁরা খোঁজ নিয়ে জেনেছেন ফারুকের দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য জঘন্য রকমের। এলাকায় আরো কয়েকজন নারী ও মেয়ের সঙ্গে সে জোরপূর্বক অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। তারা পারিবারিকভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ সাহস পায়নি ঘটনাটি পুলিশকে জানাতে। এই ছাত্রী অনেক মেধাবী ও সাহসী। সে তাঁদের কাছে বিষয়টি বলেছে এবং ওই লম্পটের বিচার দাবি করেছে।

এদিকে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১২) সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের বড় চর বেনিনগর গ্রামের মৃত বলাই সেখের ছেলে মুদি দোকানি আজিজ সেখ ঘরের মধ্যে আটকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় বলে অভিযোগ করা হয়েছে। এই ঘটনায় মেয়েটির মা গতকাল রাজবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

রাজবাড়ী থানার পরিদর্শক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বলেন, কলেজছাত্রীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগে বজলুর রহমান বিজয়কে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অন্য দুই ঘটনায় তাঁরা আসামিদের গ্রেপ্তার করার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

মাদারীপুরে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় কুপিয়ে জখম মাদারীপুর শহরের পুলিশ সুপার কার্যালয়ের পূর্ব পাশে শকুনি লেকেরপাড়ে বৈশাখী মেলা প্রাঙ্গণে ঘটে এ ঘটনা। পুলিশ, ভুক্তভোগী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হামিম ও শাহিন সরদার বৈশাখী মেলা প্রাঙ্গণে একটি কসমেটিকসের দোকান দেন। রবিবার সকালে হামিম খানের বোনের মেয়ে তার কয়েক বান্ধবীকে নিয়ে মেলায় ঘুরতে আসে। এ সময় শহরের বাগেরপাড় এলাকার আলামিন হাওলাদারের ছেলে অন্তর হওলাদার ও অমিত হওলাদার, তাদের বন্ধু আশিক, জুলহাসসহ আরো কিছু বখাটে হামিমের ভাগ্নিকে উদ্দেশ করে বাজে কথা বলতে থাকে। দোকান থেকে বের হয়ে হামিম এর প্রতিবাদ করলে বখাটেরা চলে যায়। এরপর আরো কয়েকজন সন্ত্রাসীকে নিয়ে তারা মেলার মাঠে প্রবেশ করে। হামিমকে অন্য লোক দিয়ে দোকান থেকে ডেকে মেলার পাশে নিয়ে রামদা ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে তারা। হামিমের চিৎকারে দোকানের সহযোগী শাহিন সরদার ও পাশের দোকানের লোকজন এগিয়ে যায়। বখাটেরা শাহিনকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ দেয়। তাঁদের উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হামিমের বড় ভাই রিপন খান বলেন, ‘আমি ওই বখাটে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও বিচার দাবি করছি।’ মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. কামরুল হাসান বলেন, ‘এ ব্যাপারে সোমবার সকালে একটি মামলা করা হয়েছে। আমরা তদন্ত সাপেক্ষে আসামিদের গ্রেপ্তার করব।’

 

 



মন্তব্য