kalerkantho


১০ দিনের রিমান্ডে

আনসারুল্লাহর ফোরামে যুক্ত ছিল ফয়জুর

তার মোবাইল, ট্যাবসহ ভাই গ্রেপ্তার গাজীপুরে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও সিলেট অফিস    

৯ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



আনসারুল্লাহর ফোরামে যুক্ত ছিল ফয়জুর

বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারী ফয়জুল হাসান ওরফে ফয়জুর ওরফে শফিকুরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ফয়জুরকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করলে সিলেটের মুখ্য মহানগর বিচার বিভাগীয় হাকিম (তৃতীয় আদালত) হরিদাস কুমার তা মঞ্জুর করেন।

এ ছাড়া গতকাল সন্ধ্যা ৬টার দিকে গাজীপুর থেকে ফয়জুরের ভাই এনামুলকে গ্রেপ্তার করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের সদস্যরা। সিটিটিসির উপকমিশনার মহিবুল ইসলাম খান কালের কণ্ঠকে বলেন, এনামুলের কাছ থেকে ফয়জুরের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন ও ট্যাব উদ্ধার করা হয়েছে।

এদিকে ফয়জুর জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিম বা আনসার আল ইসলামের অনলাইন ফোরাম ‘দাওয়াহ ইলাল্লাহ’র সঙ্গে যুক্ত ছিল বলে তদন্তসংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে। ওই ফোরামের নির্দেশনা অনুযায়ী সে অধ্যাপক জাফর ইকবালের ওপর হামলা চালায়।

গতকাল সকাল ১১টার দিকে ফয়জুরকে সিলেট ওসমানী হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়। এরপর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাকে কড়া পুলিশি পাহারায় আদালতে নেওয়া হয়। আদালতে ফয়জুরের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না।

ফয়জুরকে রিমান্ডে নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) মো. আবদুল ওয়াহাব জানান, গতকালই তাকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়েছে। তবে তাকে সিলেটে না ঢাকায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে তা তিনি জানাননি।

অধ্যাপক জাফর ইকবালের ওপর হামলার ঘটনা তদন্তে যুক্ত এক কর্মকর্তা জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা নিশ্চিত হয়েছেন হামলাকারী ফয়জুর ‘দাওয়াহ ইলাল্লাহ’ নামের উগ্রবাদী ফোরামে সক্রিয় ছিল। ওই ফোরামের নির্দেশনা অনুযায়ী সে জাফর ইকবালকে হত্যার পরিকল্পনা করে। এ জন্য সে নিজেকে বিশেষভাবে তৈরি করে এবং নগরের জিন্দাবাজারের আল হামরা মার্কেট থেকে একটি ধারালো ছুরি (কমান্ডো নাইফ) কিনে আনে। ঘটনার দিন সকাল থেকেই ফয়জুর ক্যাম্পাসে ছিল উল্লেখ করে ওই কর্মকর্তা জানান, সারা দিন বিভিন্নভাবে পর্যবেক্ষণের পর বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সে জাফর ইকবালের ওপর হামলা চালায়।

ওই কর্মকর্তা জানান, ওই ফোরামে স্বল্প সময়ের মধ্যে টার্গেট করা ব্যক্তির মৃত্যু কিভাবে নিশ্চিত করা যায় সে ব্যাপারে ভার্চুয়াল আলোচনার মাধ্যমে ফয়জুরকে বিশেষভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। ফোরামের নির্দেশনা অনুযায়ী নিজের শারীরিক সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য সে গত এক মাস নগরের মদিনা মার্কেট এলাকায় একটি প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত জিম করত বলেও জানা গেছে।

গত শনিবার বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্ত মঞ্চে অনুষ্ঠান চলাকালে ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে পেছন থেকে মাথায় ছুরিকাঘাত করে ফয়জুর। হামলার সময়ই হাতেনাতে আটক হয় ফয়জুর। আর আহত জাফর ইকবালকে প্রথমে সিলেটের ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এবং পরে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়। গত বুধবার সকালে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) থেকে তাঁকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জালালাবাদ থানার ওসি মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, হামলাকারী ফয়জুর সম্পর্কে অনেক তথ্য জানা গেছে। এ ছাড়া কয়েকজনকে শনাক্ত করা গেছে, যাদের সঙ্গে ফয়জুরের নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। এখন তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ওসি আরো বলেন, ফয়জুরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে আনা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হলে বিস্তারিত বলা যাবে।



মন্তব্য