kalerkantho


কারাগারে সাক্ষাৎকালে নেতাদের খালেদা জিয়া

কারো উসকানিতে পড়ে ফাঁদে পা দেবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



কারো উসকানিতে পড়ে ফাঁদে পা দেবেন না

ছবি : কালের কণ্ঠ

সরকারের সব ধরনের উসকানি পরিহার করে শান্তিপূর্ণ উপায়ে আন্দোলন পরিচালনার জন্য দলের সিনিয়র নেতাদের আবারও নির্দেশনা দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। গতকাল পুরান ঢাকার কারাগারে দলটির সিনিয়র নেতারা তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এই নির্দেশনা দেন। এ সময় তিনি বলেন, ‘আপনারা নিজেদের মতো করে দল পরিচালনা করেন। সত্যের জয় একদিন হবেই।’

বিএনপির সিনিয়র নেতারা কারাবন্দি দলের চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে সাক্ষাৎ কক্ষে প্রায় দেড় ঘণ্টা অবস্থান করেন। এ সময় তিনি দলের ঐক্যের কথা তুললে নেতারা জানান, বিএনপি আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে ঐক্যবদ্ধ আছে।

সূত্র মতে, সাক্ষাতে দলীয় নেত্রীর সঙ্গে নানা বিষয়ে আলোচনা সেরে নেন নেতারা। খালেদা জিয়া তাঁদের অভয় দিয়ে বলেছেন, কারাগারে থাকা নিয়ে তিনি মোটেও বিচলিত নন। কারাবন্দি হওয়ার পর তাঁর দল যেভাবে প্রতিদিন শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে, তাতে সন্তোষ প্রকাশ করে খালেদা জিয়া বলেন, জেলে থাকলেও প্রতিদিন বিএনপির কর্মসূচির খোঁজখবর রাখছেন তিনি। তিনি বলেন, যেভাবে চলছে এভাবেই কারো উসকানিতে পা না দিয়ে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। খালেদা জিয়া বলেন, ‘আপনারা আপনাদের মতো দল চালান। সরকারের ইঙ্গিতে নানা দিক থেকে নানান উসকানি আসবে; কিন্তু কারো ফাঁদে পা দেবেন না’। দলে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা যাবে না।

জবাবে নেতারা দলের চেয়ারপারসনকে আশ্বস্ত করেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে বিএনপি ঐক্যবদ্ধ রয়েছে।

গতকাল বুধবার বিকেল সোয়া ৩টায় বিএনপি নেতারা সাক্ষাতের সুযোগ পান। সাড়ে ৪টায় এই সাক্ষাৎ শেষ হয়। এর আগে বেলা ২টা ৫০ মিনিটে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে স্থায়ী কমিটির সাত সদস্য পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দীন রোডের কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন। এ সময় অন্যদের মধ্যে ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। এ ছাড়া খালেদা জিয়ার একান্ত সচিব এম বি এম আবদুস সাত্তারও ছিলেন প্রতিনিধিদলে।

সাক্ষাতের সময় খালেদা জিয়ার মনোবল অত্যন্ত দৃঢ় এবং আত্মবিশ্বাসী ছিল বলে জানান উপস্থিত একাধিক নেতা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন আইনজীবী নেতা কালের কণ্ঠকে জানান, নেত্রী আমাদের কাছে তাঁর জামিনের সর্বশেষ পরিস্থিতি জানতে চেয়েছেন। আমরা বিস্তারিত তুলে ধরেছি। বলেছি; মামলার নথি আগামী সপ্তাহের প্রথম দিকে আদালতে আসতে পারে। এরপর আবার জামিনের জন্য মুভ করব।

আলোচনার একপর্যায়ে খালেদা জিয়া বলেন, সরকার অন্যায়ভাবে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তাঁকে সাজা দিয়েছে। জেল খাটাচ্ছে; কিন্তু তারা ভুলে গেছে। সত্য কোনো দিন চাপা থাকে না। তাঁর মুক্তিতে প্রতিদিন কর্মসূচি থাকায় খালেদা জিয়া খুশি হয়েছেন জানিয়ে দুজন নেতা বলেন, এভাবেই শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে কারো ফাঁদে পা না দিয়ে দলের ঐক্য ধরে রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে সাক্ষাৎকালে উপস্থিত দুই নেতা জানান, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। তিনি বলেন, এত দিন পর চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে নিজেদের মধ্যে কুশল বিনিময়, সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি, তাঁর মামলার বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করার ফলে এই প্রসঙ্গটি গুরুত্বের সঙ্গে আসেনি।

কারাগার থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, খালেদা জিয়া সুনির্দিষ্টভাবে বলে দিয়েছেন, কারো উসকানিতে পা না দিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন চালিয়ে যেতে।

কারাগারে খালেদা জিয়া ‘সুস্থ আছেন’ জানিয়ে ফখরুল বলেন, তিনি দেশবাসীকে জানাতে বলেছেন, তিনি অটুট আছেন, তাঁর শরীর ভালো আছে।

এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মহাসচিব বলেন, দেশনেত্রী কারা অন্তরীণের পর থেকে আমরা একটা যৌথ নেতৃত্বে দল ও আন্দোলন পরিচালনা করছি। আমাদের ভারপ্রাপ্ত যে চেয়ারম্যান রয়েছেন তাঁর সঙ্গে পরামর্শ করেই আমরা সব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছি।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর দলীয় প্রধানের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এই সাক্ষাতের অনুমতি পেয়েছেন বলে জানান ফখরুল।

কারাগারে খালেদার এক মাস, আজ অবস্থান কর্মসূচি : এদিকে খালেদা জিয়ার কারাবাসের এক মাস পূর্ণ হয়েছে গতকাল বুধবার ৭ মার্চ। গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় তাঁর পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের রায় ঘোষণা করেন বিশেষ আদালত। ওই দিন বিকেলেই তাঁকে রাজধানীর নাজিমুদ্দীন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়।

বিএনপির একটি সূত্র জানায়, কারাবাসের এক মাস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল, আলোচনাসভাসহ নতুন কর্মসূচি নিয়ে ভাবছে দলটি। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি রয়েছে দলটির। সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ কর্মসূচি পালিত হবে।



মন্তব্য