kalerkantho


রিয়াদে ইয়াবাসহ বিমানের দুই ক্রু আটক, তোলপাড়

বরখাস্ত করাসহ বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



রিয়াদে ইয়াবাসহ বিমানের দুই ক্রু আটক, তোলপাড়

সৌদি আরবের রিয়াদে একটি পাঁচতারা হোটেল থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের দুই বিমান ক্রুকে আটক করা হয়েছে। তাঁদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে প্রায় এক হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট। এ ঘটনার পর তোলপাড় চলছে বিমানে। ওই দুই ক্রুকে বরখাস্ত করাসহ বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে বিমান সূত্র জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাতে রিয়াদের র‌্যাডিসন ব্লু হোটেলে অভিযান চালায় সৌদি আরবের পুলিশের একটি টিম। এ সময় একটি কক্ষ থেকে বিমান ক্রু আরিফ পাঠান রোহিত ও ফেরদৌস আল মামুনকে আটক করা হয়। তাঁদের লাগেজ ও শরীর তল্লাশি করে প্রায় এক হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনাটি এই কদিন গোপন রাখা হয়েছিল।

এ বিষয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের জেনারেল ম্যানেজার (মিডিয়া) শাকিল মেরাজ গতকাল রাতে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে সৌদি কর্তৃপক্ষ আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি। ইতিমধ্যে আমরা তদন্ত শুরু করে দিয়েছি।’

বিমানের এক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মঙ্গলবার সকালে একটি ফ্লাইট (বিজি-০৩৯) রিয়াদ বিমানবন্দরে অবতরণের পর দুই ক্রু রোহিত ও ফেরদৌস বিশ্রাম নেওয়ার জন্য রিয়াদে হোটেল র‌্যাডিসন ব্লুতে যান। ওই সময় হঠাৎ করেই পুলিশ হানা দেয়। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর আমরা সৌদি দূতাবাসে যোগাযোগ করি। দূতাবাসের লোকজনও সঠিকভাবে আমাদের তথ্য দিতে পারেননি। তবে তাঁরা জানিয়েছেন, রিয়াদ পুলিশ হেফাজতে দুই ক্রু আটক আছেন। তাঁদের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।’

ওই কর্মকর্তা জানান, তাঁদের যেকোনো সময় বরখাস্ত করা হবে। এ ঘটনায় ওই ফ্লাইটের পাইলটসহ অন্যদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। তিনি আরো জানান, রোহিত আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে অনার্স ও মাস্টার্স শেষে গত বছর বিমানে যোগ দেন। মামুনও একই বছর বিমানে যোগ দেন।

এপিবিএনের এক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ঢাকা থেকে কিভাবে ফ্লাইটে করে ইয়াবার মতো নিষিদ্ধ মাদক সৌদিতে পাচার করা সম্ভব হচ্ছে, তা দুই দেশের বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকেই ভাবিয়ে তুলছে।

 


মন্তব্য