kalerkantho


সিলেট থেকে নির্বাচনী তরঙ্গ ছড়িয়ে পড়ছে

► প্রধানমন্ত্রীর সফরে উজ্জীবিত নেতাকর্মীরা
► আলোচনায় সিলেট-১ আসনের মনোনয়ন

পার্থ সারথি দাস   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সিলেট থেকে নির্বাচনী তরঙ্গ ছড়িয়ে পড়ছে

সিলেট থেকে দেশজুড়ে তরঙ্গায়িত হতে শুরু করেছে জাতীয় নির্বাচনের ঢেউ। ভোটের বছরে প্রথম মাসেই আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচনের প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়েছেন। তাঁর এই ঘোষণা দেশের বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের তৎপরতায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

এদিকে আজ বৃহস্পতিবার এই সিলেট থেকেই দলের নির্বাচনী প্রচার শুরু করতে যাচ্ছে জাতীয় পার্টি। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ ও জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদসহ একটি প্রতিনিধিদল আজ সিলেটে যাচ্ছে।

সিলেটে প্রধানমন্ত্রীর মঙ্গলবারের জনসভা সফল করতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের অনেকেই আগে থেকে সেখানে অবস্থান নেন।

দুই দফায় প্রায় এক সপ্তাহ অবস্থান করেন দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নির্বাচন সামনে রেখে সিলেটে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা প্রাণবন্ত। তার প্রভাব পড়ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী শুধু নন, সাধারণ কর্মীরাও উৎসাহিত।’

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান গত রাতে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সিলেটের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা এই জনসভায় অংশ নিয়ে উৎসাহিত হয়েছে। নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত।’

সিলেট বিভাগের চার জেলার ১৯টি সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা মঙ্গলবারের জনসভা ঘিরে তৎপর হয়ে উঠেছেন। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর তাঁদের প্রচারাভিযানে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা। মনোনয়নপ্রত্যাশীদের পক্ষে মাঠে আগাম তৎপরতা চালাতে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ থেকে প্রবাসীরা সিলেটে ফিরেছে।

সিলেট জেলার ছয়টি সংসদীয় আসনের মধ্যে মর্যাদাপূর্ণ সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কে তা এখনো নিশ্চিত নয়। এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আর নির্বাচন করবেন না বলে ঘোষণা দেওয়ার পর একই আসনে জাতীয় নির্বাচনে লড়তে প্রস্তুতি নেন অর্থমন্ত্রীর ছোট ভাই ও জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ড. আবদুল মোমেন। জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনে টানা ছয় বছর দায়িত্ব পালন শেষে ২০১৫ সালের ২৮ নভেম্বর থেকে তাঁর ‘সিলেট অভিযান’ শুরু হয়।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত গত ২৫ জানুয়ারি ৮৬ বছরে পদার্পণ করেছেন। তাঁর অনুসারীদের একটি অংশ তাঁকে আবারও নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার চাপ দিচ্ছে। শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সংকেত পেলে এই আসনে তিনি প্রার্থী হতেও পারেন। তবে অর্থমন্ত্রী তাঁর ছোট ভাই ড. আবদুল মোমেনকে বহু আগেই প্রস্তুতি নিতে বলেছিলেন।

গত মঙ্গলবার সিলেটের ওসমানী বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীর সামনে গত ৯ বছরে সিলেটে উন্নয়নের প্রচারপত্র হাতে হাসিতে উজ্জ্বল ছিলেন ড. মোমেন। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাকে সিলেটে কাজ করতে বলেছেন। আমি নিয়মিত সিলেটে যাচ্ছি। কে মনোনয়ন পাবেন জানি না।’ 

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ সিলেট-১ আসনে প্রার্থী হতে চান। তিনি এরই মধ্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে রাষ্ট্রপতি করার দাবি তুলেছেন। তবে দলের শীর্ষ পর্যায় থেকে মিসবাহ উদ্দিন সিরাজকে এ ব্যাপারে আর কথা না বলতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

 



মন্তব্য