kalerkantho


বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু

জুমার জামাতে লাখো মুসল্লি

মো. মাহবুবুল আলম টঙ্গী (গাজীপুর)    

২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



জুমার জামাতে লাখো মুসল্লি

ফাইল ছবি

অনুকূল আবহাওয়া ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ধর্মীয় উদ্দীপনায় গতকাল শুক্রবার বাদ ফজর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে টঙ্গীতে তুরাগ নদের তীরে শুরু হয়েছে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের প্রথম দিনে গতকাল সেখানে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্বের বৃহত্তম জুমার জামাত। ইজতেমায় অংশ নেওয়া লাখো মুসল্লি এবং রাজধানী ও আশপাশের এলাকার হাজার হাজার মানুষ এ বৃহত্তম জুমার জামাতে জমায়েত হন। গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হওয়া দ্বিতীয় পর্বের তিন দিনের বিশ্ব ইজতেমার আজ দ্বিতীয় দিন। কাল রবিবার জোহরের নামাজের আগে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে বিশ্ব ইজতেমার ৫৩তম আসর।

শীতের তীব্রতা কমলেও ঘন কুয়াশা উপেক্ষা করে গতকাল সকাল থেকে সর্বস্তরের মুসলমানরা জুমার জামাতে শামিল হতে ইজতেমা ময়দানে জমায়েত হতে থাকে। ইজতেমা মাঠে জুমার জামাত সুবিশাল প্যান্ডেলের গণ্ডি ছাড়িয়ে বিস্তৃত হয় চারপাশে। দুপুর ১২টার দিকে ইজতেমার ময়দান উপচে আশপাশের খোলা জায়গাসহ সব স্থান জনসমুদ্রে পরিণত হয়। মাঠে স্থান না পেয়ে অনেকে মহাসড়ক ও অলিগলিতে পাটি-হোগলা, চটের বস্তা, খবরের কাগজ বিছিয়ে জুমার নামাজে শরিক হয়। ফলে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে বেশ কিছু সময় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। জুমার জামাতে ইমামতি করেন বাংলাদেশের তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বি কাকরাইল জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা হাফেজ মোহাম্মদ জুবায়ের আহমদ।

প্রথম দিন যাঁরা বয়ান করলেন : বাদ ফজর ভারতের মাওলানা মোহাম্মদ ফারুক হোসেনের আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। বাদ আসর বয়ান করেন মাওলানা মো. ইউনুছ পলানপুরী, বাদ মাগরিব বয়ান করেন মাওলানা মো. আকবর শরিফ। মুসল্লিদের সুবিধায় এসব বয়ান বাংলায় তরজমা করা হয়। এ ছাড়া ইংরেজি, ফার্সি ভাষায়ও বয়ান তরজমা করা হয়।

জুমার নামাজে ভিআইপিদের অংশগ্রহণ : গতকাল জুমার নামাজে অংশগ্রহণ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, পুলিশের আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক, অ্যাডিশনাল আইজি ড. জাবেদ পাটোয়ারী, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি আব্দুল্লাহ আল মামুন, মির্জা আজম এমপি, স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমসহ জেলা ও স্থানীয় নেতারা।

খাস বয়ান ও খুসুশি বয়ান : গতকাল সকালে বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসার ছাত্র ও শিক্ষকদের উদ্দেশে খাস ও খুসুুশি বয়ান করা হয়। বয়ান মঞ্চের সামনে উপস্থিত ছাত্র-শিক্ষকদের বিভিন্ন মেয়াদে চিল্লায় যাওয়ার ওপর গুরুত্ব দিয়ে এই বয়ান করা হয়।

বধিরদের জন্য বয়ান : বিশ্ব ইজতেমায় আসা বধিরদের জন্য নির্ধারিত খিত্তায় জামাতবদ্ধ করে বয়ান শোনার ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের বিশেষ ব্যবস্থায় ইশারা-ইঙ্গিতের মাধ্যমে বয়ান বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

মাসলেহাল জামাত কামরা : ইজতেমায় অংশ নেওয়া মুসল্লিদের কোনো সমস্যা হলে তা সমাধানের জন্য ময়দানের দক্ষিণ-পূর্ব কোণে আশরাফ সেতুর পেছনে মাসলেহাল জামাতের কামরা তৈরি করা হয়েছে। সেখানে সমস্যার সমাধান দেওয়া হয়।

মাস্তুরাত কামরা : ইজতেমা ময়দানের উত্তর-পশ্চিম প্রান্তে স্থাপন করা হয়েছে মাস্তুরাত কামরা। মাস্তুরাত কামরাটি মহিলাদের জন্য। 



মন্তব্য