kalerkantho


দলীয় সেমিনারে বাণিজ্যমন্ত্রী

সিপিডি ও বিএনপির বক্তব্যে পার্থক্য নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সিপিডি ও বিএনপির বক্তব্যে পার্থক্য নেই

ফাইল ছবি

বাণিজ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, সিপিডি আর বিএনপির বক্তব্যের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই।

এ প্রসঙ্গে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাকে একজন বললেন, সিপিডির সঙ্গে বিএনপির তুলনা করাটা ঠিক হয়নি। পরে আমি তাঁকে বললাম, দেখো, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়াটা দেওয়ার কথা বিএনপির। কিন্তু সে বক্তব্যটা দিল সিপিডি। বিএনপি আর সিপিডি তো একই। বিএনপি যে নেগেটিভ কথাগুলো আমাদের বিরুদ্ধে বলে, সে কথাগুলোই বলেছে সিপিডি।’

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তোফায়েল আহমেদ এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির ৯ বছর শীর্ষক সেমিনারের আয়োজন করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটি। প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা ও উপকমিটির আহ্বায়ক এইচ টি ইমামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রবন্ধ পাঠ করেন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আবুল বারকাত। এ সময় আরো বক্তব্য দেন পরিকল্পনা কমিশনের সিনিয়র সচিব শামছুল আলম এবং আওয়ামী লীগের উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। সেমিনারে মুক্ত প্রশ্নোত্তর পর্বে সাম্প্রতিক আলোচিত ইস্যু প্রশ্ন ফাঁসসহ বিভিন্ন বিষয়ে জানতে চান উপস্থিত দর্শকরা। এইচ টি ইমাম এসব প্রশ্নের জবাব দেন।

ডিএনসিসি উপনির্বাচন স্থগিত বিষয়ে বিএনপির প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘রায় দিল হাইকোর্ট আর সুযোগ নিলাম আমরা। এটা কোনো কথা হলো? এ কথার জবাব দেওয়াই ঠিক না। আসলে আইনের প্রতি বিএনপির কোনো শ্রদ্ধাবোধ নেই।’ মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা কি হাইকোর্টের সঙ্গে কথা বলেছি? যত্তসব নেগেটিভ কথা তাদের মুখে। এস কে সিনহাকে নিয়েও খুব লাফালাফি করেছে বিএনপি। বিচার বিভাগের প্রতি তাদের কোনো শ্রদ্ধা-ভক্তিই নেই।’

অনুষ্ঠানের সভাপতি এইচ টি ইমাম বলেন, সিপিডি এখন পলিটিক্যাল ইকোনমি করছে। তারা একটি রাজনৈতিক দলের তাঁবেদারি নিয়ে ব্যস্ত। প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে সরকারের অবস্থান কী—এমন প্রশ্নের জবাবে এইচ টি ইমাম বলেন, প্রশ্ন ফাঁস বর্তমানে বড় রকমের সমস্যা। কোনো দেশ এগিয়ে যাওয়ার সময় এ ধরনের ঘটনা কাম্য নয়। এটা সরকারকে যন্ত্রণা দিয়ে থাকে। এ জন্য তিনি কোচিং সেন্টারকে দায়ী করেন।



মন্তব্য