kalerkantho


খালেদার আরো ১৪ মামলা বিশেষ এজলাসে স্থানান্তর

নিরাপত্তার স্বার্থে : আইনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



খালেদার আরো ১৪ মামলা বিশেষ এজলাসে স্থানান্তর

ফাইল ছবি

দুর্নীতির দুটি মামলার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বিচারাধীন আরো ১৪ মামলা বিশেষ এজলাসে স্থানান্তর করা হয়েছে। রাজধানীর বকশীবাজারে কারা অধিদপ্তরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত বিশেষ ওই এজলাসে বর্তমানে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির দুটি মামলার বিচারকাজ চলছে।

গত রবিবার আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় আলাদা দুটি প্রজ্ঞাপনে খালেদা জিয়ার ওই ১৪টি মামলার বিচারকাজও অস্থায়ী এজলাসে চলবে বলে জানিয়েছে। মন্ত্রণালয়ে জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব কাজী মুশফিক রবিন স্বাক্ষরিত এই প্রজ্ঞাপনে আগামী ধার্য তারিখেই প্রতিটি মামলার কার্যক্রম বিশেষ এজলাসে করার জন্য বলা হয়েছে। তবে প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট আদালতের বিচারকই অস্থায়ী আদালতের বিশেষ এজলাসে বসে বিচারকাজ পরিচালনা করবেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থন করতে গিয়ে খালেদা জিয়া বলেছিলেন, ‘বিচার সবার জন্য সমান। কিন্তু আমার মামলা কেন বিশেষ এজলাসে?’ তিনি বিশেষ এজলাসে মামলা সহজে প্রভাবিত করা যায় বলে ইঙ্গিত করেছিলেন।

তবে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক গতকাল সোমবার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের কাছে বলেছেন, নিরাপত্তার স্বার্থেই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলাগুলো বকশীবাজারে স্থাপিত আদালতে স্থানান্তর করা হয়েছে। এতে কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নেই। খালেদা জিয়া আদালতে হাজিরা দেওয়ার সময় অনেক লোক থাকে। সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষীও থাকে। এতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব পালনে বিঘ্ন সৃষ্টি হয়। এসব বিষয় বিবেচনা করে নিরাপত্তার স্বার্থে ওই আদালতে মামলাগুলো স্থানান্তর করা হয়েছে।

আইন মন্ত্রণালয়ে লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটের স্পিকার সাবিনা আক্তারের সঙ্গে বৈঠক শেষে আইনমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তা ছাড়া ঢাকা মহানগর দায়রা আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) আবদুল্লাহ আবুও গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, অন্য কোনো কারণে নয়, খালেদা জিয়ার নিরাপত্তার বিষয়টি চিন্তা করেই বিশেষ এজলাসে মামলা স্থানান্তর করা হয়েছে।

যেসব মামলা বিশেষ এজলাসে বিচারকাজ চালানোর জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে সেগুলো হলো—রাজধানীর দারুসসালাম থানায় দায়ের করা নাশকতার আট মামলা, গ্যাটকো দুর্নীতি মামলা, নাইকো দুর্নীতি মামলা, বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা, যাত্রাবাড়ী থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলা ও মানহানির দুই মামলা।

দারুসসালাম থানার আট মামলা : ২০১৫ সালের প্রথম দিকে বিএনপির হরতাল-অবরোধ চলাকালে রাজধানীর দারুসসালাম থানায় নাশকতার অভিযোগে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলাগুলো হয়। এই আট মামলায় এরই মধ্যে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি অভিযোগ গঠন বিষয়ে শুনানির দিন ধার্য রয়েছে।

যাত্রাবাড়ী থানার বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা : ২০১৫ সালের ২৩ জানুয়ারি রাতে যাত্রাবাড়ীর কাঠের পুল এলাকায় একটি বাসে পেট্রলবোমা হামলা করে দুর্বৃত্তরা। এ হামলায় খালেদা জিয়াকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করে পুলিশ। এরপর খালেদাসহ ৩৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে ২৫ জানুয়ারি এ মামলায় অভিযোগ গঠনে শুনানির দিন ধার্য রয়েছে।

অন্যান্য মামলা : এ ছাড়া ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩-এ গ্যাটকো দুর্নীতি মামলা, বিশেষ জজ আদালত-৯-এ নাইকো দুর্নীতি মামলা ও বিশেষ জজ আদালত-২-এ বিচারাধীন বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতির মামলা বিচারাধীন। প্রতিটি মামলায় অভিযোগ গঠনের জন্য দিন ধার্য রয়েছে।

অন্য দুটি মামলা ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিচারাধীন। দুটিই মানহানির মামলা। এ দুটি মামলারও বিচারকাজ অনুষ্ঠিত হবে বিশেষ এজলাসে।

 

 



মন্তব্য