kalerkantho


ওবায়দুল কাদের জানালেন

ছাত্রলীগের সম্মেলন মার্চে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ছাত্রলীগের সম্মেলন মার্চে

ফাইল ছবি

ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনন্দ শোভাযাত্রার সূচনাকালে প্রতীক্ষিত জাতীয় সম্মেলনের কথা জানালেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। অবিলম্বে কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভা ডেকে স্বাধীনতার মাস মার্চে জাতীয় সম্মেলন করার কথা বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ ও নির্দেশে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে গতকাল শনিবার দুপুরে আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। এর আগে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইনের সঞ্চালনায় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান, সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স প্রমুখ।

সমাবেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির সময়ে অর্জন কম নয়। কিছু কিছু নেতিবাচক দিক থাকলেও তাদের আমলে ছাত্রলীগ বিশাল রূপ নিয়েছে। অনতিবিলম্বে নির্বাহী কমিটির সভা ডেকে জাতীয় সম্মেলনের প্রস্তুতি নিন। নেত্রীর ইচ্ছা, স্বাধীনতার মাস মার্চে সম্মেলন হোক। তারিখ আমরা দিতে পারি না—ছাত্রলীগই তাদের তারিখ ঘোষণা করবে। বর্তমান কমিটিতে যারা আছে তারা যদি এখন পদ না ছাড়ে তারা আওয়ামী লীগে জুনিয়র হয়ে যাবে। দল তরুণ নেতৃত্ব চায়। আর এই নেতৃত্ব ছাত্রলীগ থেকেই আসবে বলে প্রত্যাশা করি।’ তিনি বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির নেতৃত্বাধীন সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে পরাজিত করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিজয়ের অভিমুখে তারুণ্যের নবতর অভিযাত্রা শুরু হবে। এ বছর হবে অপশক্তির পরাজয়ের বছর। আসন্ন নির্বাচনে তারা আরেকবার পরাজিত হবে।

আনন্দ শোভাযাত্রার প্রস্তুতিতে গতকাল সকাল থেকে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে জড়ো হতে থাকে ছাত্রলীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা। পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনন্দ শোভাযাত্রা-পূর্ব সমাবেশের কার্যক্রম শুরু হয়। পরে অতিথিরা বেলুন ও পায়রা উড়ান। সমাবেশ শেষে আনন্দ শোভাযাত্রা চারুকলা, শাহবাগ, মত্স্য ভবন, কাকরাইল মোড়, বিজয়নগর, পল্টন মোড়, গুলিস্থানসহ বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। ২০১৫ সালের ২৬ জুলাই ছাত্রলীগের ২৮তম সম্মেলনের মাধ্যমে ছাত্রলীগের বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটি গঠিত হয়। পাঁচ মাস আগে তাদের মেয়াদ শেষ হওয়ায় সম্মেলনের দাবি জোরালো হচ্ছিল ক্রমেই।



মন্তব্য