kalerkantho


ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি

বিভিন্ন স্থানে পুলিশের বাধা সংঘর্ষ, আহত ৮১

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বিভিন্ন স্থানে পুলিশের বাধা সংঘর্ষ, আহত ৮১

ছাত্রদলের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি পালন করাকে কেন্দ্র করে গতকাল সোমবার বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রদলের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ছাত্রদল ও বিএনপির ৬৮ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। একই সঙ্গে ১৩ জন পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ছাত্রদল শোভাযাত্রা বের করলে পুলিশ তাতে বাধা দিয়ে লাঠিপেটা করে। এ সময় ছাত্রদল ও বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংঘর্ষ ও পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে পাবনা ও ময়মনসিংহের ভালুকায়। পাবনায় সংঘর্ষে পুলিশসহ ২২ জন আহত হয়েছে। ভালুকায় পুলিশসহ আহত হয়েছে ৩৬ জন।

এ ছাড়া পটুয়াখালী, ঠাকুরগাঁও, চুয়াডাঙ্গা, ফরিদপুর ও হবিগঞ্জে ছাত্রদলের কর্মসূচিতে পুলিশ বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় লাঠিপেটায় শোভাযাত্রা পণ্ড হয়ে যায়। পুলিশসহ আহত হয় অনেক নেতাকর্মী।

ছাত্রদলের অভিযোগ. বিনা উসকানিতে শোভাযাত্রায় হামলা চালিয়েছে পুলিশ। তবে পুলিশের দাবি, কর্মসূচি পালনে কোনো অনুমতি ছিল না। দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। বিস্তারিত আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে :

পাবনায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, আহত ১৫ : ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শোভাযাত্রা করতে ‘বাধার’ জের ধরে পাবনায় পুলিশের সঙ্গে বিএনপি ও ছাত্রদলের সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় পুলিশ লাঠিপেটা ও টিয়ার গ্যাস শেল নিক্ষেপ করলে দলের ১৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে দাবি করেছে বিএনপি। আহতদের পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে সংঘর্ষে সাত পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ। এসব ঘটনায় ২৬ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। আহত নেতাকর্মীরা জানায়, গতকাল দুপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে একটি শোভাযাত্রা বের করা হয়। এ সময় দলীয় কার্যালয়ের সামনেই পুলিশ তাদের শোভাযাত্রা করতে বাধা দেয়। পরে ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে শোভাযাত্রা করতে গেলে পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।

সদর থানার ওসি জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৪১ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলি ও সাতটি টিয়ার গ্যাস শেল নিক্ষেপ করে। পরে পুলিশ ২৬ নেতাকর্মীকে আটক করে।

ভালুকায় সংঘর্ষে আহত ৩৬ : ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশ ও ছাত্রদলের সংঘর্ষে পুলিশসহ ৩৬ জন আহত হয়েছে। পুলিশের লাঠিপেটায় ছাত্রদলের ৩০ জন আহত হয়েছে বলে দলীয় সূত্র দাবি করেছে। পুলিশের দাবি, ছাত্রদলের নিক্ষিপ্ত ইটপাটকেল ও গুলিতে দুজন এসআই, তিনজন এএসআই ও একজন কনস্টেবল আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে একজনকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও বাকিদের ভালুকা হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ।

ভালুকা মডেল থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো. হযরত আলী কালের কণ্ঠকে বলেন, অনুমতি না নিয়েই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান করার উদ্যোগ নেয় ছাত্রদল। ওই সময় স্থানীয় ছাত্রদলের দুটি গ্রুপে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। পুলিশ ছাত্রদলের অনুষ্ঠানে কোনো ধরনের হামলা চালায়নি।

এদিকে পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় পুলিশের লাঠিপেটায় শোভাযাত্রা পণ্ড হয়ে যায়। এতে ছাত্রদলের চার নেতাকর্মী আহত হয়। গতকাল দুপুর ১২টায় উপজেলা সদর ইউনিয়নের মানিক মিয়া চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। ঠাকুরগাঁওয়ে ছাত্রদলের শোভাযাত্রা পণ্ড ও মঞ্চ ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। এ সময় জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমানসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। চুয়াডাঙ্গায় ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের প্রস্তুতিকালে পুলিশি হামলা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জেলা ছাত্রদলের চারজন আহত হয়। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে বিএনপির দাবি, পুলিশি হামলায় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

ফরিদপুরে ছাত্রদলের শোভাযাত্রায় পুলিশ বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে শর্ত সাপেক্ষে সেখান থেকে ১০০ মিটার দূরের ময়েজউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়। হবিগঞ্জে ছাত্রদলের দুটি গ্রুপ আলাদাভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেছে। গতকাল দুপুরে পৌরসভা প্রাঙ্গণে আলোচনাসভা ও শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। তবে পুলিশের বাধার কারণে কোনো শোভাযাত্রা বের করতে পারেনি তারা।


মন্তব্য