kalerkantho


বরিশালে জন্ম-মৃত্যু সনদ

১০ দিনে আবেদন দুই হাজার মিলেছে ১০০

বরিশাল অফিস   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



১০ দিনে আবেদন দুই হাজার মিলেছে ১০০

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য গত মঙ্গলবার বরিশাল সিটি করপোরেশনে আবেদন করে ২৬৯ জন। নিয়মানুসারে তাদের গতকাল বৃহস্পতিবার সনদ দেওয়ার কথা। সে অনুযায়ী আবেদনকারীরা গতকাল সনদ আনতেও যায়। কিন্তু সার্ভার সমস্যার কারণে দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে জানানো হয়। কবে নাগাদ এ সনদ পাওয়া যাবে সেটাও নিশ্চিত করে বলতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, নগর সংস্থার জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন শাখায় মঙ্গলবার পর্যন্ত আগের সাত দিনে জমা পড়েছে আরো ১৪ শতাধিক আবেদন। বুধ ও বৃহস্পতিবার জমা পড়েছে আরো ৪১৯টি। অথচ ১০ দিনে মাত্র ১০০ জন সনদ পেয়েছে।

জন্মসনদ নিতে আসা নগরীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের আবদুর রহিম চাকলাদার বলেন, বরিশাল সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন করতে তাঁর মেয়ে সেঁজুতি আক্তার কল্পনার জন্মসনদ দরকার। ২৭ নভেম্বর তিনি আবেদন করেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিনি মেয়ের জন্মসনদ হাতে পাননি।

অথচ ভর্তির আবেদনের সময়সীমা শেষ হয়ে যাচ্ছে।

বরিশাল সিটি করপোরেশনের জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন শাখার কম্পিউটার ইনচার্জ হাসিনা মান্নান বলেন, ‘প্রতিদিন গড়ে আমাদের কাছে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের ২০০ আবেদন আসে। কিন্তু সার্ভার সমস্যার কারণে আমরা দিনে আট-দশটি সনদ প্রদান করতে পারি। গত ১০ দিনে আমাদের কাছে দুই হাজার জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের আবেদন জমা পড়েছে। আমরা মাত্র ১০০ জনকে সনদ দিতে পেরেছি। ’

নগর সংস্থার জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দীপক লাল মৃধা বলেন, ‘জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন সনদ পাওয়ার জন্য আমাদের কাছে আবেদন করতে হয়। আমরা ওই আবেদন যাচাই-বাছাই করে ঢাকায় জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের প্রধান কার্যালয়ে পাঠাই। এরপর সনদ পাওয়া যায়। পুরো কাজটাই অনলাইনের মাধ্যমে করতে হয়। আর আমরা প্রায় সময়ই ঢাকার সার্ভার ব্যস্ত পাই। এ কারণে জন্ম-মৃত্যু সনদ দিতে পারি না। ’

দীপক লাল আরো বলেন, ‘আমাদের শাখায় চারটি কম্পিউটার থাকা সত্ত্বেও সার্ভার সমস্যায় সেবা দিতে পারছি না। ’

বরিশাল সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, ‘জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য বরিশাল সিটি করপোরেশনে প্রতিদিন যে পরিমাণ আবেদন জমা পড়ে যাচাই করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সনদ দেওয়া সম্ভব। আমরা এর আগে তা দিয়েছিও। তবে সম্প্রতি ঢাকা অফিসের সার্ভার সমস্যার কারণে আমরা সেবা দিতে পারছি না। বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। শিগগিরই এর সমাধান হবে বলে নিশ্চয়তা দিয়েছে জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন কার্যালয়। ’


মন্তব্য