kalerkantho


রংপুরে হিন্দু বাড়িতে আগুন

নীলফামারী থেকে টিটু রায় গ্রেপ্তার

পুলিশ বেশি থাকলে হয়তো বাড়িগুলো রক্ষা করা যেত : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর   

১৫ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



নীলফামারী থেকে টিটু রায় গ্রেপ্তার

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গতকাল রংপুরের ঠাকুরপাড়া গ্রামে হিন্দুদের পোড়ানো বাড়িঘর পরিদর্শনসহ ক্ষতিগ্রস্তদের সঙ্গে কথা বলেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

যার বিরুদ্ধে ফেসবুকে ‘ধর্ম অবমাননা’র অভিযোগ তুলে রংপুরে হিন্দুদের বাড়িঘরে আগুন দেওয়া হয়েছে সেই টিটু রায়কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার গোলনা ইউনিয়নের চিড়াভিজা গোলনা গ্রাম থেকে রংপুর পুলিশের একটি দল তাকে গ্রেপ্তার করে।

তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রংপুরে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। দুর্বৃত্তরা সেদিন টিটু রায়ের বাড়িতেও আগুন দিয়েছে।

টিটু রায়ের গ্রেপ্তারের খবর গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। গতকাল দুপুরে তিনি রংপুরের হরকলি ঠাকুরপাড়া গ্রামে হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর পরিদর্শন শেষে বলেন, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়া নিয়ে যে ঘটনা এখানে ঘটানো হয়েছে সেই টিটু রায়কে নীলফামারীর জলঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সেই ফেসবুক আইডি টিটু রায়ের কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। কিন্তু ফেসবুকের স্ট্যাটাস নিয়ে ঠাকুরপাড়া গ্রামে বাড়িঘরে আগুন দিয়ে মালপত্র লুটসহ যে তাণ্ডব চালানো হয়েছে তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। টিটু দোষী হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘শুনেছি টিটু লেখাপড়া জানে না। সে নাকি আট-দশ বছর আগে থেকে বাড়ি ছেড়ে নারায়ণগঞ্জ গিয়ে থাকে।

পুলিশ ঘটনা তদন্ত করছে। রংপুরের ঘটনা আসলে দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা। এ জন্য এসব ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। দেশে ষড়যন্ত্র চলছে। ’

তবে রংপুর থেকে ফিরে বিকেলে ঢাকার মিন্টো রোডে পুলিশ কনভেনশন সেন্টারে এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, পুলিশ হিন্দুপ্রধান বাড়িঘরগুলো ঘেরাও করে রেখেছিল। কিন্তু সেদিন একটি জানাজায় শত শত মানুষ এসেছিল। তাদের নানাভাবে উত্তেজিত করা হচ্ছিল। শত শত মানুষ যখন এসেছিল, তখন পুলিশের সংখ্যা কম থাকায় তাত্ক্ষণিকভাবে হামলার ঘটনা মোকাবেলা করতে পুলিশকে বেগ পেতে হয়েছে। সে জন্যই ওই অঘটনটি ঘটে গিয়েছিল। তবে পুলিশ তাত্ক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়ায় বড় ধরনের ঘটনা ঘটেনি। পুলিশ বেশি থাকলে হয়তো হামলাকারীদের হাত থেকে বাড়িগুলো রক্ষা করা যেত।

ঘটনার আগাম গোয়েন্দা তথ্যে কোনো ঘাটতি ছিল কি না—সাংবাদিকরা জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সেখানে ইন্টেলিজেন্সের কোনো ঘাটতি ছিল না। ঘটনাটি আকস্মিকভাবে ঘটে গিয়েছিল। ’

টিটু রায় ঠাকুরপাড়া গ্রামের খগেন রায়ের ছেলে। চিড়াভিজা গোলনা গ্রামের বাসিন্দারা জানায়, টিটু রায় সোমবার সন্ধ্যায় ওই এলাকায় তার আত্মীয় বৈকান্ত চন্দ্র রায়ের ছেলে কৈলাশ চন্দ্র রায়ের বাড়িতে আসে। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে নীলফামারী প্রতিনিধি জানান, বৈকান্ত চন্দ্র রায় সম্পর্কে টিটু রায়ের ভগ্নিপতি। মঙ্গলবার ফজরের আজানের সময় রংপুর জেলা পুলিশের একটি দল চারটি ভ্যান নিয়ে এসে কৈলাশের বাড়ি ঘেরাও করে টিটু রায়কে গ্রেপ্তার করে।

রংপুরের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, টিটু চিড়াভিজা গোলনা এলাকায় আত্মীয় বাড়িতে ছিল। মঙ্গলবার ভোরে তাকে সেখান থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, যে স্ট্যাটাস নিয়ে রংপুরে তুলকালাম হলো, লাশ পড়ল, সংখ্যালঘু পরিবারের বাড়িঘর পুড়ল, সেটি প্রথম ফেসবুকে দেওয়া হয় খুলনার ‘মাও. আসাদুল্লাহ হামিদী’ নামের আইডি থেকে। সেটি পরে ‘এমডি টিটু’ নামের আইডি থেকে শেয়ার করা হয়। কিন্তু একপর্যায়ে সেটি ‘টিটু রায়’সহ বিভিন্ন আইডি থেকে ফেসবুকে শেয়ার করা হয়।

ধর্ম নিয়ে রাজনীতি নয় : হামলা-আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর পরিদর্শন শেষে স্থানীয় হরকলি মাদরাসা মাঠে আয়োজিত সম্প্রীতি সমাবেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ধর্ম নিয়ে কোনো রাজনীতি করতে দেওয়া হবে না। এটা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ, এখানে জাতিগোষ্ঠী সমানভাবে সহযোগিতা পাচ্ছে। তার পরও কেউ কেউ উসকানি দেবে, কেউ অন্য কারো ওপর অত্যাচার করবে, আমাদের সরকার তা সহ্য করবে না। রামু ও নাসিরনগরে একই কায়দায় তাণ্ডব চালানো হয়েছিল। এর আগেও যারাই এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের আমরা গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তি দিয়েছি। ঠাকুরপাড়া গ্রামে যারা তাণ্ডব চালিয়েছে তাদেরও খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে। ’

রংপুরে মেট্রোপলিটন পুলিশি কার্যক্রম শুরু করার জন্য জাতীয় সংসদে এসংক্রান্ত আইনটি চলতি অধিবেশনে উত্থাপন করা হবে কি না—জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দ্রুত এই আইন পাস করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গতকাল ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে করে রংপুরে পৌঁছেন। তাঁর সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন রংপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি টিপু মুন্সি, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বিরেন শিকদার, পুলিশের আইজি শহীদুল হক, জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুজ্জামান এবং রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক।

বিচার চায় ঠাকুরপাড়ার মানুষ : হামলা, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি চায় ক্ষতিগ্রস্তরা। গতকাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ওই এলাকায় গেলে তারা জড়িতদের উপযুক্ত বিচার দাবি করে। টিটু রায়ের মা জীতেন বালা বলেন, ‘আমার ছেলে দোষী হলে অবশ্যই তার বিচার হোক। আর যদি অন্যায়ভাবে কেউ এমন নারকীয় ঘটনা ঘটিয়ে থাকে উপযুক্ত বিচার হতে হবে। ’ অন্য ক্ষতিগ্রস্তরাও এমন দাবি করে।

শুক্রবার যা ঘটেছিল : ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে রংপুরে হিন্দু অধ্যুষিত হরকলি ঠাকুরপাড়া গ্রামে দুর্বৃত্তরা তাণ্ডব চালায় গত শুক্রবার। পুলিশ জানায়, ওই গ্রামের বাসিন্দা টিটু রায় নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি গার্মেন্ট কারখানায় কাজ করে। সে সেখানেই থাকে। কয়েক দিন আগে ‘টিটু রায়’ নামের ফেসবুক আইডিতে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনে আপত্তিকর এক স্ট্যাটাস দেওয়া হয় বলে অভিযোগ তোলে গ্রামবাসী। এ কারণে পার্শ্ববর্তী পাগলাপীর, মমিনপুর, হাড়িয়ালকুঠিসহ আশপাশের এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। শুক্রবার জুমার নামাজের পর আশপাশের গ্রামগুলোর কয়েক হাজার মানুষ ঠাকুরপাড়া গ্রামে হামলা চালায়। পুলিশ বাধা দিলে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ গুলি চালালে আহত হয় ছয়জন। তাদের মধ্যে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে এক তরুণ মারা যায়। হামলাকারীরা টিটু রায়ের বাড়িসহ ১০টি বাড়িঘরে ভাঙচুরসহ অগ্নিসংযোগ করে এবং মালপত্র লুট করে নিয়ে যায়।  

ঘটনা তদন্তে শুক্রবার রাতেই জেলা প্রশাসন তিন সদস্যের কমিটি করেছে। কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

এ ঘটনায় গঙ্গাচড়া থানার এসআই রেজাউল করিম ও কোতোয়ালি থানায় এসআই রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে পৃথক মামলা করেছেন। এসব মামলায় ১৫৯ জনের নাম উল্লেখসহ দুই হাজারের বেশি লোককে আসামি করা হয়েছে। গতকাল পর্যন্ত ১৩৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।


মন্তব্য