kalerkantho


রাজবাড়ী ও সুনামগঞ্জ

দুই প্রতিবন্ধীসহ তিন নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ

রাজবাড়ী ও সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৩ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০



দুই প্রতিবন্ধীসহ তিন নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দিতে পৃথক ঘটনায় দুই প্রতিবন্ধী নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নে গত মঙ্গলবার রাতে এক শারীরিক প্রতিবন্ধীকে (১৮) তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করা হয়।

অন্যদিকে ইসলামপুর ইউনিয়নের বজলু শেখ (৪৫) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি প্রতিবেশী এক প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণ করেছেন।

এ ছাড়া গতকাল সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে চারজনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগীর বাবা।

বালিয়াকান্দি থানার এসআই নুর মোহাম্মদ জানান, গত মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে এক শারীরিক প্রতিবন্ধী (১৮) প্রকৃতির ডাকে ঘরের বাইরে যান। এরপর দীর্ঘ সময় তাঁর কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরের দিন সকালে বাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে একটা বাগান থেকে তাঁকে উদ্ধার করা হয়। ওই নারীর দাবি, দক্ষিণবাড়ী গ্রামের বাবুল (২৫) তাঁকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে। ঘটনায় আরো দুই যুবক জড়িত বলেও জানান তিনি। ভুক্তভোগীর মা তিনজনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

এদিকে একই উপজেলার ইসলামপুরের ঘটনায় ভুক্তভোগীর ভাইয়ের দাবি, গত বুধবার সকালে বাড়ির সবাই তাঁর প্রতিবন্ধী বোনকে রেখে এক আত্মীয়ের বাড়ি দাওয়াত খেতে যায়।

ওই সুযোগে একই উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের ভাতশালা গ্রামের বজলু শেখ (৪৫) ওই প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ করে। বালিয়াকান্দি থানার ওসি জানান, অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।   

এদিকে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের ঘটনা সম্পর্কে স্থানীয়রা জানায়, গড়গড়ি গ্রামের লিফসন মিয়া (২০) ওই এলাকার এক স্কুলছাত্রীকে গত ১৪ সেপ্টেম্বর অপহরণ করে। এ ঘটনায় লিফসনের চাচাতো ভাই আলকাছ আলী, গয়াছ উদ্দিন ও রিপন মিয়া সহযোগিতা করে। অপহরণের পর ওই স্কুলছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে লিফসন। একপর্যায়ে মেয়েটিকে ফেলে সে পালিয়ে যায়। পরে সিলেটের জালালাবাদ থানা পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করে পরিবারের হাতে তুলে দেয়। গত বুধবার রাতে ওই ছাত্রীর বাবা অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে লিফসন মিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জগন্নাথপুর থানার উপপরিদর্শক কবির আহমদ বলেন, ‘এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ পদক্ষেপ নেওয়া হবে। ’


মন্তব্য