kalerkantho


দরবারের টাকা লুটের বিচার শুরু

র‌্যাব অধিনায়কসহ আসামি সাতজন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



দরবারের টাকা লুটের বিচার শুরু

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার তালসরা দরবার শরিফ থেকে দুই কোটি সাত হাজার টাকা লুটের ঘটনায় করা মামলার বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছেন আদালত। র‌্যাব-৭-এর সাবেক অধিনায়ক বরখাস্তকৃত লেফটেন্যান্ট কর্নেল জুলফিকার আলী মজুমদারসহ সাতজন এ মামলার আসামি।

গতকাল চট্টগ্রামের পঞ্চম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ নূরে আলম আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন। আগামী ২৩ অক্টোবর মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে।

বহুল আলোচিত এ মামলার বিচার শুরুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি আ ক ম সিরাজুল ইসলাম। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। আগামী ২৩ অক্টোবর মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে।

বহুল আলোচিত এ মামলার বিচার শুরুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি আ ক ম সিরাজুল ইসলাম। তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। আগামী ২৩ অক্টোবর থেকে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হবে। ’

মামলার আসামিরা হলেন সেনাবাহিনী থেকে চাকরিচ্যুত জুলফিকার আলী মজুমদার, চাকরিচ্যুত ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট শেখ মাহামুদুল হাসান মজুমদার, সুবেদার মোহাম্মদ আবুল বশর, পুলিশের উপপরিদর্শক তরুণ কুমার বসু, র‌্যাবের সোর্স মো. দিদারুল আলম দিদার, মো. আনোয়ার ও মানত বড়ুয়া।

আদালত সূত্র জানায়, ২০১১ সালের ৪ সেপ্টেম্বর রাতে তালসরা দরবার শরিফে অভিযান চালায় র‌্যাব-৭-এর একটি দল। ওই সময় রোহিঙ্গা আটকের নামে অভিযান চালানো হলেও দরবারের থাকা একটি বাক্স থেকে দুই কোটি সতি হাজার টাকা লুট করে র‌্যাব সদস্যরা। পরের বছরের ১৩ মার্চ দরবারের গাড়িচালক মো. ইদ্রিস বাদী হয়ে ১২ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলার তদন্ত পর্যায়ে র‌্যাব-৭-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল জুলফিকার আলী মজুমদার, ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট শেখ মাহমুদুল হাসানসহ সাত আসামি গ্রেপ্তার হন।

আনোয়ারা থানা পুলিশ ২০১২ সালের ১৫ জুলাই সাত আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। অভিযোগপত্র দাখিলের পর ২৮ আগস্ট বিচারিক আদালতে এক দফা অভিযোগের ওপর শুনানি হয়েছিল।

পরে আসামি শেখ মাহমুদুল হাসান মামলাটি বাতিলের জন্য উচ্চ আদালতে আবেদন করলে ওই বছরের ২৮ নভেম্বর উচ্চ আদালত মামলাটি স্থগিত করেন। তবে গত ১৭ আগস্ট শুনানি শেষে উচ্চ আদালত মামলাটি বাতিলের আবেদন খারিজ করে দেন। ফলে বিচারিক আদালতে মামলার বিচার কার্যক্রম ফের শুরু হয়।


মন্তব্য