kalerkantho


জগন্নাথে টেন্ডার নিয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ,আহত ২

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৭ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০



জগন্নাথে টেন্ডার নিয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ,আহত ২

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) টেন্ডার জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুই শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুর ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ সালের ডায়েরি, ওয়াল ক্যালেন্ডার ও ডেস্ক ক্যালেন্ডার মুদ্রণ, বাঁধাই ও সরবরাহ’ সংক্রান্ত দরপত্র জমা দেওয়ার নির্ধারিত সময় ছিল রবিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত। সকালে ময়মনসিংহ গ্রুপ হিসেবে পরিচিত ছাত্রলীগ নেতা তানভীর রহমান, হারুন-অর-রশিদ, আনিসুর রহমান শিশির, জহির রায়হান আগুনের নেতৃত্বে একটি দরপত্র জমা দেয়, তাদের সঙ্গে বরিশাল গ্রুপের ইব্রাহীম ফরাজীও ছিলেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে। দরপত্র জমা দিয়ে তাদের অনুসারীদের নতুন ভবনের সামনে রেখে যায়।

দুপুর পৌনে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলামের অনুসারী জুয়েল রানা ‘সরকার ট্রেডার্সের’ নামে একটি দরপত্র জমা দিতে গেলে ময়মনসিংহ গ্রুপের কর্মী নাদিমের নেতৃত্বে সিরাজুল ইসলামের অনুসারীদের ওপর হামলা করে। নাদিম বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ ও ভুগোল বিভাগের সপ্তম ব্যাচের শিক্ষার্থী।

সংঘর্ষের ছবি তুলতে গেলে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের পঞ্চম সেমিস্টারের আব্দুল ওহাবকে মারধর করে নাদিম।

 একপর্যায়ে আব্দুল ওহাব মাটিতে পড়ে গেলে নাদিম ও তার সঙ্গে থাকা কর্মীরা ওহাবের বুকে ও পিঠে লাথি মারতে থাকে। এতে ওহাব জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল সেন্টারে চিকিৎসা দেওয়া হয়, পরে তাঁকে ঢাকা মেডিক্যালে পাঠানো হয়।

এ সময় নাদিম ও তার সঙ্গে থাকা কর্মীরা তাঁর মোবাইল নিয়ে নেয়। সংঘর্ষে ইতিহাস বিভাগের দশম ব্যাচের আরিফুল ইসলাম নামের সিরাজ গ্রুপের এক কর্মীকেও মারধর করে ময়মনসিংহ গ্রুপ।

এ বিষয়ে প্রক্টর ড. নূর মোহাম্মদ বলেন, ‘আহত আব্দুল ওহাবকে ঢাকা মেডিক্যালে পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আমরা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেব। ’


মন্তব্য