kalerkantho


র‌্যাব ব্যারাকে বিস্ফোরণ

‘নিখোঁজ’ আলিফের ভাইয়ের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা ও ফরিদপুর   

২০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



‘নিখোঁজ’ আলিফের ভাইয়ের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ

রাজধানীর আশকোনায় হজ ক্যাম্পের পাশে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) প্রস্তাবিত সদর দপ্তরের অস্থায়ী ব্যারাকে ‘আত্মঘাতী’ বোমা বিস্ফোরণে নিহত জঙ্গির পরিচয় শনাক্ত করতে ফরিদপুরের নিখোঁজ যুবক জুয়েল রানা ওরফে আলিফের স্বজনদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে র‌্যাব। প্রায় দুই বছর ধরে নিখোঁজ আছে এই যুবক। পরিচয় যাচাই করতে গতকাল রবিবার আলিফের ভাইয়ের ডিএনএ নমুনাও সংগ্রহ করা হয়।

এদিকে ‘আত্মঘাতী’ বিস্ফোরণের পর সন্দেহভাজন হিসেবে আটক হয়ে র‌্যাবের হেফাজতে মারা যাওয়া হানিফ ১৮ দিন ধরে নিখোঁজ ছিল বলে জানায় স্বজনরা। ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে একদল লোক তাকে তুলে নিয়ে যায় বলেও দাবি করে তারা। হানিফ ছিল গাড়ির ব্যবসায়ী।

আশকোনায় বিস্ফোরণের ঘটনায় আর কেউ জড়িত কি না, সে বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে র‌্যাব ও পুলিশ। গতকাল পর্যন্ত মামলার তদন্তভার বিমানবন্দর থানার পুলিশের কাছে ছিল। অগ্রগতি জানতে চাইলে থানার ওসি নূরে আজম মিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘নিহত জঙ্গির পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। ফরিদপুরের জুয়েল রানা আলিফের পরিবারের লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তার এক ভাইয়ের ডিএনএন নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তা নিহত আত্মঘাতীর ডিএনএন প্রোফাইলের সঙ্গে মিলিয়ে দেখা হবে।’

র‌্যাব ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিখোঁজ যুবক জুয়েল রানা ওরফে আলিফ ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার মানিকদহ ইউনিয়নের আদমপুর গ্রামের আলমগীর শেখের ছেলে। তিন ভাই-বোনের মধ্যে সে সবার বড়। প্র্রায় ১০ বছর আগে আলিফ বিয়ে করে। কিছুদিন পরই স্ত্রীর সঙ্গে তার ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এরপর সে আর ওই গ্রামে থাকেনি। চলে আসে ঢাকা জেলার দোহার উপজেলার জয়পাড়া গ্রামে। সেখানে সে দ্বিতীয় বিয়ে করে এবং একটি ডেন্টাল ক্লিনিকে চাকরি করে। প্রথম দিকে বছরে দু-একবার বাড়িতে গেলেও গত দুই বছরের মধ্যে আলিফ বাড়ি যায়নি। আলিফের বাবা আলমগীর শেখ প্রাণ কম্পানির নরসিংদী কার্যালয়ের গাড়িচালক এবং মা জোহরা পারভীন গৃহিণী।

আলিফের চাচা সৌদিপ্রবাসী শেখ মুরাদ বলেন, ‘আমি এক মাস আগে সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরেছি। আলিফের কোনো খোঁজ আমরা জানি না। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে সাদা পোশাকধারী কয়েক ব্যক্তি বাড়িতে এসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয় দিয়ে আমাদের পরিবারের নারী-পুরুষ সদস্যসহ মোট আটজনকে চোখ বেঁধে মাইক্রোবাসে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। তারা আমাদের সঙ্গে কোনো খারাপ আচরণ করেনি। কথাবার্তা শেষে শনিবার বিকেলে আবার আমাদের বাড়িতে ফেরত দিয়ে গেছে।’

ফরিদপুরের ভাঙ্গা থানার এসআই মজিবর রহমান জানান, খোঁজ নিয়ে জুয়েল রানা ওরফে আলিফের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। কিন্তু তার বিরুদ্ধে রবিবার পর্যন্ত থানায় কোনো অভিযোগ বা মামলা পাওয়া যায়নি।

এদিকে র‌্যাব হেফাজতে মৃত হানিফের স্বজনরা গত ৪ মার্চ নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করেছিল। স্বজনরা জানায়, হানিফের ভাই মো. হালিম মৃধা সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ৪ মার্চ জিডি করেছিলেন। তাঁর পরিবার থাকে রাজধানীর রায়েরবাজারে। হানিফের স্ত্রী কুলসুম বেগম বলেন, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বরিশালে চরমোনাইয়ের পীরের মাহফিলে গিয়েছিল হানিফ ও তার বন্ধু সোহেল। সেখান থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি তারা লঞ্চে করে ফিরে আসে। নামে কাঁচপুর সেতুর কাছে। তাদের আনতে প্রাইভেট কার নিয়ে যায় চালক জুয়েল। সেখানে গিয়ে জুয়েল দেখতে পায় সাত-আটজন নিজেদের ডিবি পরিচয় দিয়ে হানিফ ও সোহেলকে হাইয়েস গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। আর কয়েকজন এসে প্রাইভেট কারে উঠে জুয়েলকে অস্ত্র ঠেকিয়ে চালাতে বলে। এরপর তারা জুয়েলকে মারধর করে পূর্বাচলে ফেলে গাড়ি নিয়ে চলে যায়। গত শুক্রবার স্বজনরা টেলিভিশনের খবরে জানতে পারে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে হানিফ নামের একজনের মৃত্যু হয়েছে। তখন তারা সেখানে গিয়ে পরিচয় শনাক্ত করে। হানিফের বন্ধু সোহেল এখনো নিখোঁজ।

কুলসুম জানান, হানিফের গাড়ির ব্যবসা ছিল। তুরাগ পরিবহনে তার তিনটি বাস ও একটি প্রাইভেট কার রয়েছে। তার বাড়ি বরগুনার আমতলীর আমড়াগাছিয়ায়। আর সোহেলের পুরনো ফার্নিচারের ব্যবসা রয়েছে গুলশান-২ নম্বরে।

জানতে চাইলে র‌্যাবের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘নিহতরা কী কাজে জড়িত ছিল, তাদের কী পরিচয় এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। পাশাপাশি তাদের সঙ্গে যারা ছিল সেই অজ্ঞাতপরিচয় সাত-আটজন কারা, তা খোঁজা হচ্ছে।’ ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘হানিফকে ঘটনার পরপরই আশকোনার মুনমুন কাবাবের কাছ থেকে ধরা হয়। আর নিখোঁজ জুয়েল রানা ওরফে আলিফ ওই আত্মঘাতী জঙ্গি হতে পারে—এমন কিছু তথ্য মিলেছে। এখন যাচাই চলছে।’

গত শুক্রবার জুমার নামাজের আগে রাজধানীর আশকোনায় র‌্যাবের ব্যারাকে ঢুকে ‘আত্মঘাতী’ বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় এক যুবক। ওই সময় র‌্যাবের দুই সদস্যও আহত হন।

 



মন্তব্য