kalerkantho


গণসংযোগে ব্যস্ত সীমা ও সাক্কু

বিধি ভঙ্গের অভিযোগ বিএনপির

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা   

১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



গণসংযোগে ব্যস্ত সীমা ও সাক্কু

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুটে চলেছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মনোনীত দুই মেয়র প্রার্থী। আনুষ্ঠানিক প্রচারণার দ্বিতীয় দিনে গতকাল বৃহস্পতিবার দিনভর নগরীর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি ওয়ার্ডে ব্যাপক গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণে ব্যস্ত সময় পার করেছেন তাঁরা।

এদিকে ধানের শীষের প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর পক্ষে গণসংযোগকালে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান অভিযোগ করে বলেছেন, সরকারি দলের প্রার্থী নির্বাচনী বিধি ভঙ্গ করছেন। কিন্তু নির্বাচন কমিশন এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

অন্যদিকে নৌকার প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা বলেছেন, ‘সবাই আমাকে হাসিমুখে বরণ করছে। কুমিল্লার জনগণ ভোট দিয়ে বুঝিয়ে দেবে যে তারা স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিতে বিশ্বাসী। নৌকার জনপ্রিয়তা কতটুকু তা কুমিল্লার জনগণ ভোটের মাধ্যমে জানিয়ে দেবে। ’

গতকাল দুপুর ১২টার দিকে কুমিল্লা সিটির ৯ নম্বর ওয়ার্ড বাগিচাগাঁও এলাকাসহ কয়েকটি এলাকায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণে ব্যস্ত সময় পার করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের সাবেক সভাপতি শাহিনুল ইসলাম শাহিন, যুবলীগ নেতা চিত্তরঞ্জন ভৌমিক, ডা. আজম খান নোমান, যুবলীগ নেতা আতিকুর রহমান খান পিন্টু ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি অপি।

মনিরুল হক সাক্কু গতকাল সকালেই প্রচারণার মাঠে নেমে পড়েন। সকাল সাড়ে ৯টায় নগরীর ১০ নম্বর ওয়ার্ড ঝাউতলা এলাকায় গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণকালে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদেরও দেখা যায়।

সাক্কুর সঙ্গে ছিলেন বিএনপির বর্ষীয়ান নেতা নজরুল ইসলাম খান, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া প্রমুখ।

ধানের শীষ প্রতীকের পক্ষে প্রচারণাকালে নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার মিডিয়ার মাধ্যমে জনগণকে বলেছেন, তিনি নিরপেক্ষ ভূমিকা দিয়ে প্রমাণ করবেন যে তিনি নিরপেক্ষ মানুষ। অথচ ইতিমধ্যে আমরা দেখছি, সরকারি দলের পক্ষ থেকে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গ করা হচ্ছে। কমিশন কোনো ব্যবস্থাই নিচ্ছে না। এ ব্যাপারে আমরা কমিশনে লিখিত অভিযোগ করেছি। ’

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, আবদুর রব চৌধুরী ফারুক, যুবদলের সভাপতি আমীরুজ্জামান আমীর, শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ভিপি জসিম উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা সাজ্জাদুল কবির সাজ্জাদ ও ইউসুফ মোল্লা টিপু।


মন্তব্য